আদালতের আদেশ না মানতে সেনাবাহিনীকে অ্যাটর্নি জেনারেলের নির্দেশ!

সময় বাংলাঃ মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনকে অপসারণের নির্দেশ দিতে পারে দেশটির সুপ্রিমকোর্ট। এমন আশঙ্কার কথা জেনে আজ টেলিভিশনে এক বিরল ভাষণ দিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মুহাম্মদ অনিল।ভাষণে প্রেসিডেন্টকে অপসারণে সুপ্রিমকোর্ট নির্দেশ দিলে তা মানতে মালদ্বীপের সেনাবাহিনীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা যখন সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশ অমান্য করতে আহ্বান জানাচ্ছিলেন, তখন তার পাশে বসা ছিলেন সেনা ও পুলিশ বাহিনীর দুই প্রধান। খবর আলজাজিরা।
অ্যাটর্নি জেনারেল মুহাম্মদ অনিল বলেন, মালদ্বীপ বড় ধরনের সংকটের দিকে যাচ্ছে। আমরা জানতে পেরেছি, সুপ্রিমকোর্টি প্রেসিডেন্টকে অপসারণের নির্দেশ দিতে যাচ্ছে। সশস্ত্র বাহিনী ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে বলছি- আপনার এই অবৈধ নির্দেশের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করবেন না।
এর আগে নির্বাসিত সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ নাশিদসহ ৯ জন উচ্চ পদমর্যাদার রাজনৈতিক ব্যক্তিকে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। কিন্তু ইয়ামেন প্রশাসন আদালতের সেই নির্দেশ ক্রমাগত অমান্য করে যাচ্ছে।
এ কারণে মালদ্বীপে রাজনৈতিক উত্তেজনা বেড়েই চলছে। রাজধানী মালেতে রায়ের পক্ষে-বিপক্ষে ব্যাপক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ হয়েছে।
আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সুপ্রিমকোর্টের রায়কে স্বাগত জানিয়ে তা মানতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে।
শুক্রবার জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস সুপ্রিমকোর্টের রায় মানতে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের প্রতি আহ্বান জানান।
সর্বদলীয় সংলাপের মাধ্যমে রাজনৈতিক বিরোধ মিটিয়ে ফেলতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে সব ধরনের সহযোগিতা করতে জাতিসংঘ প্রস্তুত রয়েছে।
কিন্তু সব আদেশ-অনুরোধ উপেক্ষা করে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন শনিবার এক জনসমাবেশে বলেন, জনগণের এই কঠিন সময়ে পালিয়ে যাওয়ার মতো লোক আমি না।
এর আগে তিনি দেশটির প্রধান পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেন। সোমবার যে পার্লামেন্টের অধিবেশন হওয়ার কথা ছিল, তা বাতিল করেন।
সরকারি দল ছেড়ে ১২ পার্লামেন্ট সদস্য বিরোধীদের যোগ দেয়ায় তাদের পদমর্যাদা কেড়ে নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সর্বোচ্চ আদালত তাদের মর্যাদা পুনর্বহাল করলে পার্লামেন্টে বিরোধীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়ে যায়। এতে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের অভিশংসনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর