আপনার শ্রবণশক্তি রক্ষার্থে করণীয়

brian 2

সময় বাংলা, অনলাইন ডেস্ক: মানুষের ছয়টি ইন্দ্রীয়র মাঝে অন্যতম হচ্ছে শ্রবণ ক্ষমতা। এর মাধ্যমে আপনি আপনার মনের কথা অন্য এক জনের কাছে ব্যক্ত করতে পারেন খুব সহজে। কিন্তু প্রতিদিনের শব্দ দূষণ এবং তার সাথে আরো কিছু অজনা কর্মকাণ্ড আপনার এই শুনতে পারার যন্ত্রটিকে ধীরে ধীরে করছে নানা ক্ষতির সম্মুখীন।

প্রতিদিনের ছোট ছোট কিছু পদক্ষেপ কীভাবে আপনার শ্রবণ ক্ষমতাকে বাড়াতে পারে চলুন জেনে নেই।

শব্দ দূষণের প্রভাব
শব্দ কানের মাধ্যমে ঢুকে সোজা পৌঁছায় মস্তিষ্কে। এই যাত্রা পথে তাকে সাহায্য করে কানের সরু পথে থেকে অসংখ্য ছোট ছোট লোম। যা শব্দকে তরঙ্গ আকারে মস্তিস্কে পৌঁছায়। কিন্তু যখন আপনি উচ্চস্বরে গান শুনবেন কিংবা গাড়ির হর্ন এর সম্মুখীন হবেন তখন আপনার কানের সরু পথে থাকা সেই লোমগুলো মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হবে। কখনো কখনো আপনার শ্রবণ ক্ষমতা চিরদিনের নষ্ট হয়েও যেতে পারে। তাই এগুলো এড়িয়ে চলুন।

শব্দ মাত্রা সম্পর্কে জানুন
মানুষের সাধারণত শ্রবণ ক্ষমতা থাকে ৬০ থেকে ৬৫ ডেসিবাল পর্যন। ৮৫ ডেসিবেল পর্যন্ত মানুষ শব্দ শুনতে পায়, কিন্তু এর বাইরে গেলেই মানুষের শ্রবণশক্তিতে সমস্যা দেখা দেয়। ধরুন আপনি ৮৫ ডেসিবেলের একটি গান শুনছেন, যখনি আপনি ১০৬ ডেসিবেলের গান শুনবেন আপনার কানের ছোট ছোট লোম গুলো ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হোন
কানে ব্যথা, শুনতে সমস্যা হলে বা কানে পানি ঢুকলে সময় নষ্ট না করে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন। এছাড়া শুনতে সমস্যা হলে ওডিওলোজিস্ট এর শরণাপন্ন হোন।

কম ভলিউমে গান শুনুন
গান শোনার সময় অবশ্যই অল্প ভলিউমে গান শোনা উচিত। একটি গবেষণায় দেখা গেছে অধিকাংশের সমস্যা হয়ে থাকে হেড ফোনে উচ্চস্বরে গান শোনার জন্য। আর অবশ্যই গাড়ি চালানোর সময় উচ্চ স্বরে গান শোনা থেকে বিরত থাকুন, এটি আপনার কানে বড় ধরনের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

কাজের ক্ষেত্রে সর্তক হোন
কিছু কিছু জায়গায় কাজ করতে হয় প্রচণ্ড শব্দের মধ্য থেকে। যেমন গ্লাস ফ্যাক্টরি। এসব জায়গায় কাজ থেকে যতটা পারুন বিরত থাকুন নয়তো শব্দ থেকে বিরত থাকতে সর্তকতা অবলম্বন করুন।

শব্দ দূষণ থেকে শিশুদের দূরে রাখুন
কোমলমতি শিশুরা সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয় শব্দ দূষণে। তাই শিশুকে রাখুন নিরাপদে। একটু অসাবধানতা শিশুর শ্রবণশক্তিকে করতে পারে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন।

ঔষধ সেবনে সর্তক হোন
কিছু কিছু ঔষধ এর প্রতিক্রিয়া আপনার শ্রবণ ক্ষমতাকে ক্ষতি করতে পারে, তাই ঔষধ সেবনের আগে ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে নিন।

সাবধানে চলাফেরা করুন
আপনার একটু অসাবধানতা কখনো কখনো দুর্ঘটনার কারণ হতে পারে। আর বেশির ভাগ দুর্ঘটনায় শ্রবণশক্তি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই যতটা সম্ভব সাবধানে চলাচল করুন। বাইসাইকেল চালানোর ক্ষেত্রে অবশ্য হেলমেট এবং গাড়িতে সিট বেল্ট ব্যবহার করুন।

কান খুচিয়ে পরিষ্কার করবেন না
কানের অভ্যন্তরের অংশ খুব সরু এবং নমনীয়। তাই কান পরিষ্কার করার সময় আঘাতে অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ পর্যন্ত হতে পারে। তাই তুলোর তৈরি কাঠি দিয়ে কান পরিষ্কার করবেন না।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন