আড়িয়াল বিলের একটি মিষ্টি কুমড়ার দাম তিন হাজারও হয়

সময়বাংলা, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার ১৩৬ বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে আছে আড়িয়াল বিল৷ দেশের মধ্যাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ও প্রাচীন এ বিলের মাটি খুবই উর্বর৷ শুষ্ক মৌসুমে তাই এ বিলে ফসল ফলান কৃষকরা৷
আড়িয়াল বিল থেকে পাইকাররা প্রতি পিস হিসেবে কিনে নেন মিষ্টি কুমড়া৷ আকারভেদে প্রতিটি মিষ্টি কুমড়া বিক্রি হয় ৭০ টাকা থেকে ৩,০০০ টাকায়৷
শুষ্ক মৌসুমে নানান সবজির পাশাপাশি কৃষকরা আড়িয়াল বিলে মিষ্টি কুমড়ার চাষই সবচেয়ে বেশি করেন৷ বাংলাদেশে মিষ্টি কুমড়ার সবচেয়ে বেশি চাষ হয় এখানেই৷
কৃষি অফিসের তথ্য মতে, আড়িয়াল বিলে ২৭০ হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়৷ গত বছর আড়িয়াল বিলে ১১,৩৪০ মেট্রিক টন কুমড়ার চাষ হয়েছিল৷
আড়িয়াল বিলে চাষ হওয়া মিষ্টি কুমড়া আকারে বেশ বড় হয়৷ কোনো কোনো মিষ্টি কুমড়া দুই থেকে আড়াই মন ওজনের হয়ে থাকে৷ সারা দেশে আড়িয়াল বিলে চাষ হওয়া মিষ্টি কুমড়ার চাহিদা রয়েছে৷
মিষ্টি কুমড়া পাকা শুরু হলে তা তুলতে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে শ্রমিকরা আসেন আড়িয়াল বিলে৷মিষ্টি কুমড়া তোলার শ্রমিকদের বেশিরভাগই আসেন দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে৷ এ কাজে একজন শ্রমিক দিনে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত পান৷ বিলের কাছাকাছি জমি থেকে শ্রমিকরা মিষ্টি কুমড়া মাথায় করে নিয়ে আসেন৷ পরে সেখান থেকে কিনে নিয়ে যান পাইকাররা৷ তবে দূরের জমি থেকে মিষ্টি কুমড়া নিয়ে আসা হয় নৌকায়৷ শীতে বিলের ভেতরের খালগুলো প্রায় শুকিয়ে গেলে শ্রমিকরা গুন টেনে নৌকা নিয়ে আসেন৷
চাষীরা আড়িয়াল বিলের গাদিঘাটে সব মিষ্টি কুমড়া জড়ো করেন৷ সেখান থেকে পাইকাররা কিনে পাঠিয়ে দেনে দেশের বিভিন্ন স্থানে৷- ডিডব্লিউ

সময়বাংলা/আইসা

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর