এমপি হারুনের অপকর্মের খবরে লাইক দেয়ায় সাংবাদিক পেটাল স্থানীয় চেয়ারম্যান ও তার লোকেরা

সময় বাংলা, ঝালকাঠি: ঝালকাঠি-১ আসনের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের অপকর্মের সংবাদ ফেসবুকে লাইক দেয়ায় এইচএম বাদল নামে এক সাংবাদিককে লোহার রড দিয়ে বেধরক পিটিয়ে পা ভেঙে দিয়েছে স্থানীয় কাঁঠালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সিকদার ও তার লোকেরা । সাংবাদিক এইচ এম হারুন বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।  আহত সাংবাদিক এইচএম বাদল বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের কাঁঠালিয়া কমিটির আহ্বায়ক এবং আঞ্চলিক দৈনিক বরিশাল প্রতিদিনের স্থানীয় প্রতিনিধি।

বাদল জানান, মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে কাঁঠালিয়া উপজেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের পেছনে ধরে নিয়ে তাকে লোহার রড দিয়ে পেটানো হয়। খবর পেয়ে আত্মীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘রাজধানীর রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণের ঘটনায় সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের বিরুদ্ধে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের লিংকে ফেসবুকে লাইক দেওয়ার অভিযোগ তুলে আমার ওপর হামালা চালায় তারা।’

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাকিব রহমান বলেন, ‘বাদলের শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার পা ও কোমরে গুরুতর আঘাত রয়েছে, চিকিৎসা চলছে।’

বাদলকে মারধরের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে গোলাম কিবরিয়া সিকদার সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি বাদলকে মারধর করিনি। এমপির বিরুদ্ধে লেখায় স্থানীয়রা হয়তো মারতে পারে।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ঝালকাঠি জেলা শাখার আয়োজনে সাংবাদিকরা বুধবার দুপুরে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বৃহস্পতিবার সকালে ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে কাঁঠালিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ ইউনুস মিয়া জানান, ‘এ ব্যাপারে কোনও অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ না আসায় কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন