কালীগঞ্জে বাড়ি ছাড়া জামাত ও বিএনপির নেতা কর্মীরা

সময়বাংলা, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে বিএনপি ও জামায়াতের নেতা কর্মীরা বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে।কালীগঞ্জ থানায় যুবদল নেতা সাইফুল,ছাত্রদল নেতা সোনা, আলমসহ ৭ জনের নাম এবং ৭০ নেতাকর্মীকে আসামি করে থানায় বিষ্ফোরক মামলা হওয়ায় নেতা কর্মীরা পালিয়েছে।পুলিশ বলছে নেতা কর্মীরা কোন কারণ ছাড়াই উদ্দেশ্য পুনদিত ভাবে পুলিশের উপর হামলা চলায়। যে কারণে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করতে বাধ্য হয়। শুক্রবার দিবাগত রাতে পুলিশের ওপর ককটেল বোমার বিস্ফোরণ এবং সরকারি কাজে বাধাদান ও আঘাত করার অপরাধে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করেন। মামলার বাদী হয়েছেন কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শেখ সুজাত আলী। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার এসআই অমিত দাস।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, কালীগঞ্জ উপজেলার বেজপাড়া গ্রামের প্রথম আলো মোড় নামক স্থানে ২০ দলীয় জোট নেতাকর্মীরা জমায়েত হয়ে সমাবেশ করছিল।কালীগঞ্জ থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে অজ্ঞাতনামা আসামিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ও তাদের ওপর দুইটি ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।এ সময় পুলিশ পালিয়ে রক্ষা পায়।পরে পুলিশ ২০ দলীয় জোটের লোকজনের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায় বেজপাড়া গ্রামের মধ্যে।

এ ঘটনায় এসআই শেখ সুজাত আলী বাদী হয়ে সাত জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৭০ জনকে আসামি করে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ০১, তারিখ ২.২.১৮। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জালের কাঠি, জর্দার কৌটাসহ বোমার আলমত উদ্ধার করেছে। তবে এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে কোনও আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই অমিত দাস বলেন, ‘পুলিশের ওপর হামলা ও ককটেল বোমা নিপেক্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে। পলাতক আসামিরা জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মী। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন