কিতাবের বিদ্যুত গোয়ালে নাই…

এড. মোঃ সলীমুল্লাহ খান: বিদ্যুত উৎপাদন সক্ষমতা ১৫ হাজার মেগাওয়াটের বেশি।  প্রতিদিন চাহিদা প্রায় ৯ হাজার মেগাওয়াট।
রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামতের কাজে মোট উৎপাদন বন্ধ আছে প্রায় ১৯০০ মেগাওয়াট(সূত্র পিডিবি) ।

২০% রিজার্ভ ধরে ১২ হাজার মেগাওয়াটের সক্ষমতা থাকলে, চাহিদার পুরোটা অর্থাৎ ৯ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন করা যায়।  মোট সক্ষমতা ১৫,০০০- মোট উৎপাদন বন্ধ ১৯০০= মোট সক্ষমতা ১৩১০০ মেগাওয়াট । প্রতিদিন লোডশেডিং ৩ হাজার মেগাওয়াট। মোট চাহিদা ৯০০০- মোট লোডশেডিং ৩০০০= ৬০০০ মেগাওয়াট প্রতিদিন উৎপাদন হচ্ছে। ১৩১০০ মেগাওয়াট সক্ষমতা থাকলে, উৎপাদন হওয়ার কথা প্রায় ৯৫০০ মেগাওয়াট ।
৩৫০০ মেগাওয়াট উৎপাদন হচ্ছে না কেন?

কিতাবের বিদ্যুৎ মানুষের ঘরে নাই। ঘরে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েই, বছরে চার পাঁচবার দাম বাড়ানো হয়। রেন্টাল- কুইক রেন্টালে লুটপাট করা যায়, বিদ্যুৎ উৎপাদনে টেকসই সক্ষমতা অর্জন করা যায় না। শুরু থেকেই যা বলেছি, এখন তা দেখা যাচ্ছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন