কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর এজেন্টের বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, গর্ভবতী’সহ ৫ নারী আহত

কুমিল্লা প্রতিনিধি: ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে সরকার দলীয় নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর এজেন্টের বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ, লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় হামলায় এক গর্ভবতী’সহ ৫ নারী আহত হয়েছে। এ হামলার নেতৃত্বে ছিলেন আওয়ামী লীগ দলীয় বিদ্রোহী মেম্বার প্রার্থীর বড় ভাই। বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেস্বর) দুপুরে উপজেলার রায়কোট উত্তর ইউনিয়নের যজ্ঞশাল গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। পরে জেলার চৌদ্দগ্রাম থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। জানা যায়, উপজেলার রায়কোট উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডে সরকার দলীয় সমর্থনে মেম্বার প্রার্থী হন শরিফপুর গ্রামের মোস্তফা কামাল (ফুটবল), ওই ওয়ার্ডে একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেন যুবলীগ নেতা যজ্ঞশাল গ্রামের মৃত রুহুল আমিনের পুত্র জিয়াউল হক জিয়া (মোরগ)। দলীয় ফুটবল প্রতিকের এজেন্ট হন যজ্ঞশাল গ্রামের জাকির হোসেনের পুত্র সাইফুল ইসলাম।

সকাল ৯ টায় শরীফপুর নতুন বাজার কেন্দ্রটি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নেয় সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরা। তখন বিদ্রোহী প্রার্থীর বড় ভাই শামিম হোসেন শামুর নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ সাইফুলের বাড়ীতে হামলা করে ঘরে থাকা আসবাবপত্র ভাংচুর করে ও মোটরসাইকেল ঘর এবং খড়ের স্তুপে অগ্নিসংযোগ করে আতংক সৃষ্টি করে। এসময় নগদ ২৫ লাখ টাকা ও ৩৫ ভরি স্বর্ণ লুটে নেয় তারা। সাইফুলের ৩ ভাই ও বাবা প্রবাসে কর্মরত। ওই হামলায় আহতরা হলেন- সাইফুলের গর্ভবতী ভাবী নাজমা বেগম, হাজেরা আক্তার, ফারজানা আক্তার, তার ভাতিজি ফারিয়া আক্তার ও মা হাজেরা খাতুন। আহতরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আহত হাজেরা খাতুন জানান, আমাদের বাড়ীতে যখন শামীম লোকজন নিয়ে এসে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে তখন আমি নগদ ২৫ লাখ টাকা ও ৩৫ ভরি স্বর্ণ নিয়ে বাড়ী থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তারা আমাকে পিটিয়ে আহত করে আমার নিকট থেকে টাকা ও স্বর্ণ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে নাম না প্রকাশ না করার শর্তে ওই গ্রামের এক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ফুটবল মার্কার এজেন্ট ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল’সহ কয়েকজন শরীফপুর কেন্দ্রে আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী জিয়াউল হক জিয়ার উপর অনাক্রমণ করে তাকে গুরুতর আহত করে। জিয়া এখন কুমিল্লা সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে, তার অবস্থা আশংকাজনক। জিয়ার উপর অনাক্রমণের ঘটনার জেরে সাইফুলদের বাড়ীতে হামলা করে জিয়ার মোরগ মার্কা সমর্থিতরা।এ বিষয়ে রিটানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি অফিসার বলেন, আমার কাছে এরকম কোন খবর নেই। এ ব্যাপারে জানতে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ুবকে বারবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

সময় বাংলা/এএইচ

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর