ক্যাস্রোর মস্তিস্ক বিপ্লবী চে গুয়েভারা

আসমানি আশাঃ

বিশ্বের যত পুরাণ বা কল্পকাহিনীর বীর আছে তাদের সকলকে ছাড়িয়ে যে সত্তিকারের বিপ্লবী নামটি আজো মানুষের মননে গেঁথে আছে তিনি হলেন বিপ্লবী সাহসী বীর আর্নেস্তা চে গুয়েভারা । ১৯২৮ সালের ১৪ জুন আর্নেস্তা চে গুয়েভারা আর্জেন্টিনায় রোসারিও’তে জন্মগ্রহণ করেন। পরিবারের পাঁচ সন্তানের মধ্যে সবার বড় ছিলেন আর্নেস্তা চে গুয়েভারা । শৈশব থেকেই সমাজের বঞ্চিত,অসহায়, দরিদ্রের প্রতি তার ভিতর এক ধরণের মমত্ববোধ তৈরী হয়। ১৯৪৮ সালে চে গুয়েভারা বুয়েনস আয়ার্স বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা শাস্ত্রে পড়তে ভর্তি হন, আগ্রহ ছিল সাহিত্য,ভ্রমণ এবং খেলাধুলাতে, ফুটবল আর রাগাবি খেলতে পছন্দ করতেন।

সমাজ পরিবর্তনে বিপ্লবের জন্যে চে ছিলেন গৃহত্যাগী, দেশত্যাগী, বিপ্লবী বীর। তিনি আফ্রিকা আর লাতিন আমেরিকার দেশে দেশে বিপ্লব ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ঘুরতেন একজন বিপ্লবী কর্মী হিসেবে, পরামর্শদাতা বা নেতা হিসেবে নয় । বিপ্লবের জন্য তিনি পিছনে ফেলে গেছেন পরিবার পরিজন, সম্মান, পদমর্যাদা । তরুণদের বিপ্লবের পথে টানার এমন আদর্শিক বিপ্লবী চে’র বিকল্প আর নেই।

আর্জেন্টাইন নাগরিক চে গুয়েভারা কিউবা বিপ্লবে অংশ নিয়েছিলেন । ফিদেল ক্যাস্ট্রোর সরকার তাঁকে প্রথমে কিউবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করে এবং পরে শিল্পমন্ত্রী। কিউবা বিপ্লবে তিনি সার্বক্ষণিক কর্মী হিসেবেই ছিলেন এবং তাঁকে ক্যাস্ট্রোর দলে ডাক্তার হিসেবে নেওয়া হয়েছিলো । তিনি ফিদেল ক্যাস্ট্রোকে জানান তার বিভিন্ন প্রতিযোগিতা, কূটনীতি এবং অধ্যাবসায়ের কথা । ফিদেল ক্যাস্ট্রো কে পরামর্শ দিয়েই নয় তিনি সরাসরি অংশ নিয়েছিলেন কিউবা বিপ্লবে । বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিন তাকে “ক্যাস্ট্রোর মস্তিষ্ক ” বলে আখ্যায়িত করেছিল।

বিপ্লবী জীবনে চে বিভিন্ন সময়ে কঠিন প্রতিকূলতার সম্মুখীন হন এবং শত্রুর রোষানলে পড়েন। বিপ্লবে তিনি কখনও হতাশ হন নি । ১৯৬৭ সালের ৭ অক্টোবর বলভিয়ার সেনাবাহিনী কর্তৃক তিনি গ্রেপ্তার হন এবং ৯ অক্টোবর বলভিয়ার লা হিগুয়েরার এক মাটির দেয়ালের স্কুল বাড়িতে হুইস্কি পান করে মাতাল হয়ে মারিয়া তোরন নামে এক সৈন্য হত্যা করে মহান বিপ্লবী চে গুয়েভারা’কে। চে গুয়েভারের বিপ্লবী জীবন সমাজতন্ত্রপন্থীদের জন্য অনুকরণীয় । এমন দেশত্যাগী, স্বার্থ ত্যাগী,দেশে দেশে আগুন জ্বালাতে যাওয়া সফল বিপ্লবীর জীবন সকল বিপ্লবীর জন্যে আদর্শ। তরুণদের বেলায় চে এক বিপ্লবী অনুপ্রেরণার নাম । শত সহস্র বছর চে বিপ্লবীদের হৃদয়ে থাকবেন বিপ্লবের এক প্রমিথিউস হিসেবে।

লেখকঃ ছাত্রনেতা

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন