লেবানন বিএনপির প্রতিবাদ সভায় খালেদা জিয়াকে দেয়া সাজার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড়

সময়বাংলা, লেবাবন: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তার পুত্র তারেক রহমানসহ অন্য সকল আসামীদের বিরুদ্ধে দেয়া এই রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত এবং বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রেখে ফাঁকা মাঠে আরেকটি অবৈধ নির্বাচন করতে এই রায় দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি লেবানন শাখার নেতৃবৃন্দ।

বৃহস্পতিবার রাতে বেগম খালেদা জিয়ার রায়ের বিরুদ্ধে লেবানন বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় এমনটি বলেন নেতৃবৃন্দ।

লেবানন বিএনপির সভাপতি মফিজুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে এবং সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম আইমানের পরিচালনায় প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে ছিলেন লেবানন বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা আমির হোসেন কলিম।

অন্যান্যদের মাঝে আরো উপস্থিত ছিলেন, লেবানন বিএনপির সাধারন সম্পাদক জাকির হোসেন জাকির, সিনিয়র সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার, উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য জালাল আহমেদ, রুহুল আমিন,  মো: মানিক মোল্লা ,আবদুল খালেক তাহের, সহ সভাপতি আবু বকর ছিদ্দিক, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মুজিবল হক, সহ সাধারণ সম্পাদক ওয়াসীম আকরাম, দপ্তর সম্পাদক আবদুর রহিম মতিন, শাখা কমিটির সভাপতি মোস্তফা পাটোয়ারি, শামিম মাহবুব, মোতালেব হোসেন, মো: জনি সহ প্রমুখ।

লেবানন বিএনপির সাধারন সম্পাদক জাকির হোসেন জাকির শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রমূলক প্রতিহিংসার মামলায় অন্যায়ভাবে সাজা দেওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে এবং আরেকটি ৫ জানুয়ারীর মত অগণতান্ত্রিক একপেশে নির্বাচন করার জন্য বিনাভোটের এই সরকার দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রীকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে প্রমাণ করেছে তারা দেশে গণতন্ত্র চায় না। তিনি আরো বলেন, দেশের জনগণ তাদের আর কোন অগণতান্ত্রিক ও প্রহসনমূলক এক তরফা এবং বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া কোন নির্বাচন মেনে নিবে না। রক্ত দিয়ে হলেও এই বাংলাদেশের মানুষ গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনবে এবং কঠোর আন্দোলনের মধ্য দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনবো বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সভাপতি মফিজুল ইসলাম বাবু তার বক্তব্যে বলেন,কোন প্রমান ছাড়া কেবলমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় শেখ হাসিনার নির্দেশেই আইন সচিব দুলালের দেয়া লেখা রায় পড়ে শুনিয়ে সাবেক তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে এই স্বৈর সরকারের আদালত।

সিনিয়স সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, এই মামলার রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত এবং বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রেখে ফাঁকা মাঠে আরেকটি অবৈধ নির্বাচন করতে এই রায় দেয়া হয়েছে। রায় যিনি দিয়েছেন, সেই বিচারক আক্তারুজ্জামান এক সময় আওয়ামী লীগের ক্যাডার ভিত্তিক রাজনীতি করতেন। সে আওয়ামী লীগের দেয়া রায় পড়েছে মাত্র। ন্যায় এবং সঠিক বিচার হলে খালেদা জিয়া সহ সকল আসামিরা খালাস পায়। দুদক একটি যুক্তিও সঠিক ভাবে তুলে ধরতে পারেনাই। বেগম খালেদা জিয়ার অভিজ্ঞ আইনজীবিদের কাছে কোন সঠিক প্রমান তারা দাড় করেতে পারেনি। শুধু মাত্র অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খুশি করতে তারি দেয়া পান্ডলিপি পাঠ করেছে বিচারক।

তিনি আরো বলেন, রায়ের দিন শেখ হাসিনা  এক জনসভায় ভোট চাইতে গিয়ে ব্যঙ্গ করে তার বাবার স্টাইলে বলেন কোথায় আজ খালেদা জিয়া। এতে বুঝতে বাকি থাকেনা কোন প্রমান ছাড়া বিচারক কিভাবে রায় দিলেন।

নেতৃবৃন্দ এই রায়ের তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে এই রায় প্রত্যাহারের দাবি জানান এবং দেশের সকল নেতাকর্মীদের অবৈধ সরকারের অবৈধ রায়ের বিরুদ্ধে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান।

সভা শেষে বেগম খেলাদা জিয়ার জেল মুক্তি ও তার সুস্থতা কামনায় মহান আল্লাহর দরবারে দুহাত তোলে দোয়া প্রার্থনা করা হয়। সে সময় লেবানন বিএনপির তৃনমূলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন