গাড়ির মালিকানা বদলাতে যা করবেন

সময় বাংলা, ডেস্ক: গাড়ির মালিকানা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়কে কিছু প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হয়। আসুন জেনে নেই ধাপগুলো কী কী? আসুন জেনে নেয়া যাক-

ক্রেতা হিসেবে করণীয় :
১. নির্ধারিত ফরম ‘টিও তে ক্রেতার স্বাক্ষর এবং ‘টিটিও এর নির্ধারিত স্থানে ক্রেতার নমুনা স্বাক্ষর নিতে হবে। এই ফরম বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।
২. নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে রশিদের মূল কপি বিআরটিএ জমা দিতে হবে।
৩. প্রয়োজনীয় কাগজপত্র :

ক্রেতার টিন সার্টিফিকেট, জাতীয় পরিচয়পত্র এবং বর্তমান বাড়ির ঠিকানার টেলিফোন বিল বা বিদ্যুৎ বিল, মূল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট (ব্লু-বুক) এর উভয় কপি, ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট এবং হালনাগাদ ট্যাক্স-টোকেন, ফিটনেস, রুট পারমিট কাগজপত্র সত্যায়িত করে দিতে হবে।
৪. ছবিসহ ২০০ টাকা অথবা সরকার নির্ধারিত নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে হলফনামা জমা দিতে হবে। ক্রেতা যদি কোনো প্রতিষ্ঠান হয় তাহলে হলফনামার পরিবর্তে অফিসিয়াল প্যাডে চিঠি দিতে হবে
৫. ফরমে ক্রেতার স্বাক্ষর এবং ৩ কপি স্ট্যাম্প সাইজের রঙ্গিন ছবিসহ ফরমের অন্যান্য সকল তথ্য ইংরেজি বড় অক্ষরে পূরণ করে জমা দিতে হবে।
৬. গাড়িটি প্রদর্শনের জন্য বিআরটিএ অফিসে নিয়ে আসতে হবে।
৭. বিক্রেতার স্বাক্ষরে কোন সমস্যা থাকলে তাকে বিআরটিএ অফিসে উপস্থিত করতে হবে।

বিক্রেতা হিসেবে করণীয় :
১. ‘টিটিও’ ফরম এবং বিক্রয় রশিদে বিক্রেতার স্বাক্ষর (সাক্ষীর স্বাক্ষর ও রাজস্ব স্ট্যাম্পসহ)
আনতে হবে।
২. ছবিসহ ২০০ টাকা অথবা সরকার নির্ধারিত নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে হলফনামা জমা করতে হবে।
৩. বিক্রেতা যদি কোম্পানি হয় কোম্পানির লেটার হেড প্যাডে ইন্টিমেশন, বোর্ড রেজুলেশন ও অথরাইজেশনপত্র দিতে হবে।
৪. গাড়িটি ব্যাংক অথবা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের কাছে দায়বদ্ধ থাকলে দায়বদ্ধকারী প্রতিষ্ঠানের ঋণ পরিশোধের ছাড়পত্র, লোন অ্যাডজাস্টমেন্ট স্টেটমেন্ট, ব্যাংক সহকারী পরিচালকের একটি অনুরোধপত্র এবং ২০০ টাকা অথবা সরকার নির্ধারিত নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে হলফনামা জমা করতে হবে।
৫. বিক্রেতার জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি জমা করতে হবে।
৬. বিক্রেতার স্বাক্ষরে কোন অমিল থাকলে তাকে অফিসে উপস্থিত হতে হবে।

ওয়ারিশ সূত্রে মালিকানা বদলির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র :

১. পূরণকৃত ও স্বাক্ষরিত ‘টিও’ ও ‘টিটিও’ ফরম
২. কোর্ট বা স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের ওয়ারিশ সনদ।
৩. প্রয়োজনীয় ফি জমা দেয়ার রশিদ।
৪. একাধিক ওয়ারিশ থাকলে প্রথম ওয়ারিশের সার্টিফিকেটের সত্যায়িত কপি (ভাড়ায় চালিত নয় এমন কার, জীপ, মাইক্রোবাস-এর ক্ষেত্রে)।
৫. মূল রেজিস্ট্রেশন সনদ (উভয় কপি)/ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট(দরকার হলে)।
৬. ছবিসহ নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে ওয়ারিশগণের হলফনামা, তবে একাধিক ওয়ারিশ থাকলে এবং একজনের নামে মালিকানা প্রদান করা হলে সেক্ষেত্রে অন্যান্য ওয়ারিশগণদের ছবিসহ নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে আরো একটি হলফনামা দিতে হবে।
৭. নমুনা স্বাক্ষর ফর্মে নমুনা স্বাক্ষর এবং ইংরেজিতে নাম, বাবা/স্বামীর নাম, পুরো ঠিকানা ও ৩ কপি স্ট্যাম্প সাইজের রঙ্গিন ছবি সহ ফরমের অন্যান্য তথ্য দিতে হবে।

সূত্র বিআরটিএ এর ওয়েবসাইট

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন