খালার ‘গুম-খুন’ নীতি কাল হয়েছে মুজিবনাতনীর

খালার ‘গুম-খুন’ নীতি কাল হয়েছে মুজিবনাতনীর, ‘ফ্যামিলি নিউজ’র দোহাই দিয়ে বাঁচার চেষ্টা: জাহিদ এফ সরদার সাদী

সময় বাংলা রিপোর্ট: টিউলিপ সিদ্দিকের মিথ্যা কথাগুলো একের পর এক ধরিয়ে দিচ্ছে বৃটিশ মিডিয়া। এই মহিলা বৃটিশ পার্লামেন্টে প্রথমবার বক্তব্য দেবার সময় তার খালা শেখ হাসিনাকে সেখানে উপস্থিত করে ঘোষণা করেছিলো, ‘তার খালা তার রাজনৈতিক আদর্শ’। সে রাশিয়ায় বাংলাদেশ সরকার প্রধানের অস্ত্র চুক্তি করার সময় সরকারি প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলো, তার খালা হাসিনার সাথে ২০ জনের বেশি বৃটিশ এমপিকে নিয়ে ওয়েস্ট মিনিস্টারে বৈঠক করেছিল, বৃটিশ পার্লামেন্টের স্পিকারের সাথে বৈঠক করেছিল। এসব বৈঠকের ছবি ইন্টারনেটেই পাওয়া যায়। এসব কী কেবলই পারিবারিক ছবি?

টিউলিপ নিজেই তার ওয়েব পেজে লিখে রেখেছিল, সে আওয়ামী লীগের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করে। বিভিন্ন সময়ে তাকে আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক সভায় এবং রাষ্ট্রীয় সংবর্ধনার পাশাপাশি নেতা-কর্মীদের সাথে বৈঠক করতে দেখা গেছে।

তারপরও টিউলিপ বলছে, ‘বাংলাদেশ সরকার প্রধানের সাথে তার সম্পর্ক কেবলই পারিবারিক, হাসিনার সাথে তার কোন রাজনৈতিক আলাপ হয় না!’সে আরো বলেছে, বৃটিশ আইন অনুযায়ী তার পক্ষে নাকি তার নির্বাচনী এলাকার বাইরের কোন ব্যক্তির জন্য কাজ করা সম্ভব নয়। অথচ অন্যান্য বৃটিশ এমপিরা এটিকে ‘মূর্খের আচরণ’ হিসেবে অভিহিত করে বলেছেন, তারা নিয়মিতভাবেই তাদের এলাকার বাইরের বৃটিশ নাগরিকদের সমস্যার পাশপাশি বিদেশি নাগরিকদের সমস্যা নিয়েও কাজ করেন। এমনকি অন্য দুই বৃটিশ এমপি রোশারারা এবং রুপা হক বাংলাদেশের বিভিন্ন নাগরিকদের সমস্যা নিয়ে বৃটিশ পার্লামেন্টেও আলোচনা করেছেন।

আসলে টিউলিপ একটা সত্য বলেছে, সেটি হচ্ছে- সে তার খালার কাছ থেকেই রাজনীতি করতে শিখেছে- তাই সে অবলিলায় মুখ ভেংচি কেটে মিথ্যা বলতে পারে, তার খালার হাতে লেগে থাকা হাজার হাজার মানুষের রক্ত অস্বীকার করতে পারে, তার খালার তৈরী গুমপুরীতে গিয়ে রাজনৈতিক সুবিধা রাষ্ট্রীয় প্রটোকল নিয়ে গুম-খুনকে সমর্থন করতে পারে। টিউলিপ সম্ভত বৃটেনেও তার খালার রাজনৈতিক আদর্শে গুম-খুনের রাজনীতি চালু করতে পারবে। দেখা যাক, বৃটিশরা এই রাজনৈতিক বর্জ্য কতদিন সহ্য করতে পারে।
উৎস: https://www.channel4.com/…/tulip-siddiq-questions-over-link…
সংগৃহীতঃ ওয়াহিদ্দুজামান

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন