ঘরোয়া চিকিৎসায় মাথা ব্যথা দূর করার ১০ উপায়

সময় বাংলা, ডেস্ক: মাথা ব্যথা যে কোনো সময়, যে কাউকে কাবু করে ফেলতে পারে। আর যখনই সে আমাদের শরীরে থাবা বসায় আমরা ছুটি ওষুধের দোকানে। কখনো ওষুধে কাজ হয়, কখনও হয় না। কিন্তু মাথার যন্ত্রণা নানা কারণে বারে বারে ফিরে আসে। যন্ত্রণাকে আটকাবে এমন ওষুধ না থাকলেও এমন কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা আছে যা দিয়ে যন্ত্রণাকে নিমেষে কাবু করে ফেলা সম্ভব।

১. ল্যাভেন্ডার: এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লমেটরি এবং অ্যান্টি-সেপটিক প্রপাটিজ, যা যে কোনও ধরনের যন্ত্রণা কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। পরিমাণ মতো গরম পানিতে কয়েকটি ল্যাভেন্ডার পাতা ফেলে ভাপ নিন। দেখবেন আনেক আরাম পাবেন।

২. তুলসি: কয়েকটি তুলসি পাতা নিয়ে হাতে ঘোষে কপালে লাগিয়ে ফেলুন। আরাম পাবেন। কারণ এই পাতাটিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা এই ধরনের কষ্ট কমাতে দারুন কাজে আসে।

৩. থাইম পাতা: ল্যাভেন্ডার পাতার মতনই এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লমেটরি প্রপাটিজ যা প্রদাহ কমায়। তাই মাথায় যন্ত্রণা হলেই থাইম পাতার রস খান। ফল পাবেন হাতে-নাতে।

৪. লেবুর মলম: মাথা যন্ত্রণা কমাতে এটি দারুন কাজে আসে। এমনকি যে কোনও ধরনের চুলকানি কমাতেও এই ঘরোয়া ওষুধটির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে।

৫. পার্সলে: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটানোর পাশাপাশি মাথার যন্ত্রণা কমাতে এটি ভাল কাজ করে। তাই এবার থেকে মাথার যন্ত্রণা হলেই অল্প করে পার্সলে শাখের পাতা খেয়ে নেবেন। নিমেষে কমে যাবে ব্যথা।

৬. মিন্ট পাতা: প্রতিদিন নিয়ম করে মিন্ট পাতা দিয়ে বানানো চা খেলে শুধু মাথায় যন্ত্রণা নয়, সেই সঙ্গে পেটের ব্যথা এবং মাথা ঘোরার মতো সমস্যাও কমে।

৭. রোজমেরি: এটি এক প্রকার গুল্ম। এটি দিয়ে বানানো চা খেলে মাথা ব্যথা সঙ্গে সঙ্গে কমে যায়।

৮. ঋষি পাতা বা সেগে পাতা: এই পাতাটি মাথার ব্যথা তো কমায়ই, সেই সঙ্গে আরও নানা ধরনের সমস্যার প্রকোপ কমাতে কাজে লাগে।

৯. অ্যালো ভেরা: এতে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিজ এবং বেশ কিছু কার্যকরি এনজাইম, যা মাথার যন্ত্রণা এবং একাধিক স্কিনের সমস্যা কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

১০. আদা: মাথা ব্যথা কমাতে এই প্রকৃতিক উপাদানটির কোনো বিকল্প হয় না বললেই চলে। কারণ এতে থাকা অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান কপালের ভিতরে থাকা ব্লাড ভেসেলের প্রদাহ কমানোর মধ্যে দিয়ে নিমেষে মাথা যান্ত্রণা কমাতে দারুন উপযোগী ভূমিকা পালন করে থাকে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন