নির্বাচন ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান: কাদের

সময় বাংলা, ঢাকা: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির একাদশ জাতীয় নির্বাচন ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখাতে পারে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ বিএনপিকে প্রতিহত করবে। ৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র রক্ষা দিবস’ উপলক্ষে ঢাকা শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর বনানী মাঠে মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এসব কথা করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া বলেছেন, বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন করতে দেয়া হবে না। অপেক্ষা করেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে। নির্বাচনে আসুন।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, ‘নির্বাচন বিএনপি বা কারও জন্য বসে থাকবে না। সংবিধান অনুযায়ী যথা সময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আপনাদের (বিএনপি) ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ আপনাদের প্রতিহত করবে।’ নির্বাচন ঠেকাতে চাইলে বাংলার জনগণ প্রতিহত করবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।
সেতুমন্ত্রী বলেন, ৫ জানুয়ারি বিএনপির রাজনৈতিক আত্মহত্যা দিবস। একদিকে জনগণের গণতন্ত্রের বিজয় দিবস, অন্যদিকে ‘সাম্প্রদায়িক শক্তির’ আত্মহত্যা দিবস। আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে আরেকবার আত্মহত্যা দিবস পালন করতে হবে বিএনপিকে।

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হলে, স্বাধীনতার চেতনাকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হলে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে হবে। দেশে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে শেখ হাসিনাকে আরেকবার ক্ষমতায় আনতে হবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ফারুক খান বলেন, আগামী নির্বাচনে ভরাডুবি হবে বুঝতে পেরে বিএনপি ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ভবিষ্যতে কেউ যেন নির্বাচন বানচাল করতে না পারে, সেদিকে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী সাহারা খাতুন, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য হাবিবুর রহমান সিরাজ, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর