নীপিড়কের বিরুদ্ধে দাড়িয়ে মার খায় লিটনরা,মারে জাকিররা, তুমি কার পক্ষে?

সময় বাংলা, ঢাকা: টিভি খুললে দেখা যাচ্ছে লিটনকে মার খেতে। ছাত্রলীগ রড দিয়ে তার পিছনে যেই দাগ বানিয়েছে সেই দাগ লিটনের প্রাপ্য ছিল। কেন জানেন? কারন কয়েকবছর আগেই পহেলা বৈশাখে সে মেয়েদের উপর যৌনহয়রানি দেখে এগিয়ে গিয়েছিল। দাবী করেছিল বিচারের। এবার তাকে দেখা গিয়েছিল ভিসির অফিস ঘেরাওয়ে অংশ নিতে, যেখানে তার দাবী ছিল আন্দোলনরত ছাত্র ছাত্রীদের উপর ছাত্রলীগের বর্বর হামলার বিচার।

সেই বছরে লিটনকে টিভিতে টকশোতে ডাকা হলো, প্রথম আলো তাকে নিয়ে দীর্ঘ রিপোর্ট করলো। এবার তার বক্তব্য নিয়ে রিপোর্ট হবে না। কারন সে একটা বেয়াদপ। অন্যায়ের বিচার চাওয়া বেয়াদপি।

তো, তোমরা নিরীহ ছাত্র ছাত্রীরা যারা লিটনকে দেখলে টিভিতে তারা নিশ্চয়ই খুব ভাল। ভাল করে মার খাও, চুপ করে সব সহ্য করে যাও। যারা পথে নামে, বিচার চায় তারা সবাই বেয়াদপ। বেয়াদপদের দেখে কি হবে। আর তাছাড়া টিভিতে এইসব দৃশ্য কি তোমরা আসলে দেখো? এগুলি তো দেখার টাইম নাই। এত টিভি সিরিয়াল আর নাটক যেহেতু দেখায়। আর লিটনকে চিনবা কেন রে বাপ? আজকে কেউ যদি বলে আন্দোলনকারী ছাত্ররা খারাপ, আর যেই ছেলেটা মার খাচ্ছে সে নিরীহ ছাত্রলীগ কর্মী তাহলে তাও বিশ্বাস করে ফেলতে পারো। বলা যায় না!

তা সে যাই হোক। নিপিড়নের বিপক্ষে দাঁড়ালে নিপীড়িত হতে হয়। ফুলস্টপ। কে দাঁড়াবে কে দাড়াবেনা তা তার সিদ্ধান্ত।

যারা কোনদিনই দাঁড়ালো না তাদের বলি, তোমরা বেশী করে মার খাও। মারই তোমাদের প্রাপ্য। জোড় করে মিছিলে যাওয়াও তোমাদের প্রাপ্য। না গেলে মারও প্রাপ্য।

গায়ে মার লাগলে যেহেতু বলতে হয় আদর খেয়েছো। কাজেই ভাল করে আদর খাও পরমর্যাদা নিয়ে। আত্মমর্যাদা যেহেতু নাই।

মোসাহিদা সুলতানা, শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর