ফরিদপুরে ভরণপোষণ চেয়ে ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করলেন মা

নিজস্ব প্রতিনিধি: ভরণপোষণ করবে, এমন শর্তে ছেলেকে বসতভিটার জমি লিখে দিয়েছিলেন বৃদ্ধ মা-বাবা। সম্পত্তি পাওয়ার পর মা-বাবাকে বাসা থেকে বের করে দেন ওই সন্তান।  স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ধরে ছেলের কাছে দৈনিক ১০০ টাকা ভরণপোষণের দাবি জানালে তাতেও আপত্তি করেন ছেলে। বাধ্য হয়ে ভরণপোষণ চেয়ে ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করলেন মা।

ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুরে। আজ সোমবার নিজের ও বৃদ্ধ স্বামীর ভরণপোষণের দাবি তুলে ফরিদপুরের ৪ নম্বর আমলি আদালতে ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন বৃদ্ধা জহুরা বেগম।

ওই আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. সুমন হোসেন মামলাটি আমলে নিয়ে একমাত্র আসামি সেলিম সরদার ওরফে মধুর (৩৫) প্রতি সমন জারি করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের মা-বাবার ভরণপোষণ আইনে মামলাটি করা হয়েছে। ফরিদপুরে এ আইনে দায়ের করা এটিই প্রথম মামলা।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মামলার বাদী জহুরা বেগমের বয়স ৬০ বছর এবং তাঁর স্বামী পাচু সরদারের বয়স ৭৫ বছর। তাঁরা মধুখালী উপজেলার ব্যাসদী গাজনা গ্রামের বাসিন্দা। তাঁদের দুই ছেলে। বড় ছেলে মুরাদ সরদার অনেক আগেই তাঁদের থেকে আলাদা হয়ে গেছেন। ছোট ছেলে সেলিমের সঙ্গে থাকতেন তাঁরা। কিছুদিন আগে ভরণপোষণের শর্তে ছোট ছেলেকে তাঁদের বসতভিটার জমি লিখে দেন এই দম্পতি। কিন্তু সেলিম সরদার ১৪ জানুয়ারি শনিবার বিকেলে বাড়ি থেকে জোর করে তাঁদের তাড়িয়ে দেন। বর্তমানে তাঁরা অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী মানিক মজুমদার বলেন, ১৪ এপ্রিল ওই বৃদ্ধ দম্পতি এলাকার কয়েকজন ব্যক্তিকে নিয়ে তাঁদের ছেলের কাছে ভরণপোষণ বাবদ প্রতিদিন ৫০ টাকা করে মোট ১০০ টাকা দাবি করেন। কিন্তু ছেলে সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে দেন। এরপর মামলাটি করা হয়।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন