ফিলিপাইনে শুনানি: বাংলাদেশের কাছে দুঃখ প্রকাশ, ফেরত দেবে লাভের টাকা

>18 3 16ঢাকা:নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার চুরি হওয়ার পর এই অর্থ ফিলিপাইনের মুদ্রা পেসোতে রূপান্তর করা প্রতিষ্ঠান ‘ফিলরেম’ বাংলাদেশের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে।
 
একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি অর্থ রূপান্তর থেকে প্রাপ্ত আয় এক কোটি ৭৬ লাখ ৭৬ লাখ এক হাজার ৪৭২ টাকা ৫৪ পয়সা বাংলাদেশকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
 
বৃহস্পতিবার ফিলিপাইনে সিনেটের শুনানিতে ফিলরেম সার্ভিস করপোরেশনের সভাপতি সালুদ বাউতিস্তা বলেন, তারা ওই অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে চেয়েছিলেন। প্রথমে তারা প্রশ্নবিদ্ধ ওই অর্থ পেসোতে রূপান্তরের ব্যাপারে আগ্রহীও ছিলেন না।
 
সিনেটে তদন্তে সাক্ষ্যগ্রহণ চলার সময় ফিলরেমের চেয়ারম্যান সালুদ বাউতিস্তা বলেন, ‘এই পুরো ঘটনায় বাংলাদেশের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি আমরা। এবং এই পুরো কার্যক্রমে আমাদের পুরো লাভের অঙ্কের সমান একটি চেক এখনই বাংলাদেশ সরকারকে দিতে প্রস্তুত আমরা।’
 
এ ছাড়া বর্তমানে অর্থ চুরির কোনো প্রক্রিয়ার সঙ্গে ফিলরেম জড়িত নয় বলেও দাবি করেন তিনি। সালুদ দাবি করেন, তাদের প্রতিষ্ঠান ফিলরেম জানত না যে এই টাকা বাংলাদেশ থেকে চুরি করে আনা হয়েছিল।
 
সালুদ বাউতিস্তা জানান, পুরো অর্থপাচার প্রক্রিয়াটিতে ফিলরেমের আয় এক কোটি চার লাখ চুয়াত্তর হাজার ৬৫৪ পেসো। বাংলাদেশি টাকায় তা দাঁড়ায় এক কোটি ৭৬ লাখ এক হাজার ৪৭২ টাকা ৫৪ পয়সা। এই পরিমাণ টাকা যেকোনো মুহূর্তে বাংলাদেশের প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তরে তৈরি আছে প্রতিষ্ঠানটি।
 
এদিকে ব্লু রিবন তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান সিনেটর তৃতীয় তিওফিস্তো গিনগোনা বলেছেন, শুধু ক্ষমাপ্রার্থনা করে পার পাবে না ফিলরেম। তাদের আইনি প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যেতে হবে।
 
শুনানির সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিলিপাইনের রাষ্ট্রদূত রিচার্ড গোমেজ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন