ফেসবুক বন্ধুকে বিয়ে: ইতিহাস গড়লো রাসেদা-নিরব আহেমেদ সুহেব

ইসমাইল হোসেন স্বপন | ইতালি থেকে: রঙ পাথরের পৃথিবীতে শত বাঁধা ডিংগিয়ে প্রেম আসে স্বর্গের সিড়ি হয়ে। আর এটাই হলো মানব জীবনে
আসা প্রকৃত প্রেম। লাইলী-মজনু, দেবদাস-পার্বতী, রোমিও-জুলিয়েট, শাহজাহান-মমতাজ সহ আরো
অনেকের জীবনে এ ধরনের প্রেম এসেছিল। প্রেমের সেই পুরনো আর্দশ বর্তমান যুগে অনেকটা ফিকে হয়ে গেলেও তার ব্যতিক্রম ঘটলো রাসেদা ও সুহেদ এর জীবনে। আধুনিক যুগে তাদের প্রেম কাহিনী আমাদের ফিরিয়ে নিয়ে যায় ঐতিহাসিক
প্রেমের ইতিহাসের দিকে। কারণ ওরাও চেয়েছে প্রেমের মাধ্যমে একে অপরের হৃদয়ের মরুভূমিতে
ফুলফুটাতে।

রাসেদা ও নিরব আহেমেদ সুহেব দু’জনই বাংলা
দেশি বংশদ্ভোধ তরুণ-তরুণী। রাসেদা বসবাস করেন ইতালির ভিসেঞ্জা শহরে। তাঁর গ্রামের বাড়ি শরিয়তপুরের নড়িয়াতে। নিরব আহেমেদ সুহেব
বসবাস করেন ইতালির মিলান শহরে। তাঁর গ্রামের বাড়ি সিলেটের জালালাবাদে। ফেইস বুকের সূত্র ধরেই তাদের মধ্য প্রথমে বন্ধুত্ব ও পরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। দীর্ঘ ৩ বছর একটানা এ সম্পর্ক চলতে থাকে। এরই মধ্য একজন হয়ে উঠে আরেক জনের নয়নের আইকন। প্রেমের আইডল হয়ে তারা ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। কিন্তু নানা ভয়ভীতি বাঁধা বিপত্তি টানাপোড়েন থাকলেও তারা তা কানে নেয় নি।

পাখিরা যেমন লতাপাতা দিয়ে বাসা বাঁধে ঠিক তেমনি করেই তারা ভালবাসা দিয়ে বাসা বাঁধার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। অবশেষে অনেক কাঠ খড়ি পুড়িয়ে তারা তাদের অভিভাবকদের কাছে এই প্রেমের স্বীকৃতি আদায় করতে সন্মত হন। ইতালির ভিসেঞ্জা রেষ্টুরেন্টে শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) জাকজমক একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের বিয়ের কাজ সম্পন্ন করা হয়। রাসেদা ও নিরব। একে অপরকে কাছে পেয়ে ধন্য। ধন্য তাদের প্রেম এবং সত্যি হলো লাভ ইজ হেভেন।

সময় বাংলা/ এএইচ

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন