‘বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে কেন যাবেন না খালেদা?’

সময়বাংলা, ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কেন বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে চিকিৎসা করাবেন না তার কারণ জানতে চান হাছান মাহমুদ। পরে নিজেই বলেছেন, তার স্বাস্থ্য নিয়ে নোংরা রাজনীতি হচ্ছে।

ক্ষমতাসীন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেন, ‘কিছুদিন আগে বেগম খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে গিয়েছেন, এখন কেন যাবে না? এখন কেন ইউনাইটেড হাসপাতালে নিতে হবে?’

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনায় বক্তব্য রাখছিলেন হাছান।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের দণ্ড নিয়ে কারাগারে যাওয়া খালেদা জিয়াকে গত ৭ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে বেশকিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। গত ১০ মে তাকে আবারও পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য এই হাসপাতালে আনার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, বঙ্গবন্ধুতে আসবেন না, যেতে চান বেসরকারি হাসপাতাল ইউনাইটেডে।

এর মধ্যে সরকার খালেদা জিয়াকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রস্তাব দেবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এই প্রস্তাব ফেরানো উচিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বিএনপির দাবি, বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের চেয়ে বেসরকারি হাসপাতাল ইউনাইটেড স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং সেটি বিশেষায়িত। কাজেই সেখানে চিকিৎসা ভালো হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে বিএনপি নোংরা রাজনীতি করছে। জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে বিএনপির কোনো মাথাব্যথা নেই। তাঁদের মাথাব্যথা খালেদা জিয়ার হাঁটু আর কোমরের ব্যথা নিয়ে। তাই এই নোংরা রাজনীতি থেকে বিএনপিকে বেরিয়ে আসতে হবে।’

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনেই আগামী নির্বাচন হবে বলেও জানান হাছান। বলেন, ‘যদি বিএনপি ২০১৪ মত নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে আত্মহত্যা ছাড়া আর কোন উপায় থাকবে না। তাই পানি ঘোলা না করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুন।’

বিকল্প ধারার সভাপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীসহ কয়েকজন নেতা নতুন করে আবার ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন বলেও অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ নেতা। বলেন, ‘তারা পানি ঘোলা করে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করতে চায়। কিন্তু এসব ষড়যন্ত্র করে আর কোনো লাভ হবে না।’

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি পীযুষ বন্দোপাধ্যায়, কবি রবীন্দ্র গোপ,বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা, কৃষক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শেখ মো. জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ আলোচনায় বক্তব্য রাখেন

সময়বাংলা/আইসা

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর