“বাবার মৃত্যু আর সন্তান মিথ্যা মামলায় জেল হাজতে বন্দী”

“অমানবিকতার সাক্ষী বাংলাদেশ” আর কত নিপীড়ন অত্যাচার, জুলুম চলবে এইভাবে?

সময়বাংলা, যুক্তরাষ্ট্র: দেশনেত্রী বেগম জিয়ার নামে মিথ্যা ও ভুয়া মামলার রায়কে কেন্দ্র করে গত ৫ই ফেব্রুয়ারী আওয়ামী পুলিশ পরোয়ানা ছাড়া গ্রেফতার করে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক ইসহাককে। পরবর্তীতে একাধিক মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয় তাঁকে আসামী করে।

আজ সকালে ছেলেকে নিয়ে চিন্তায় রোগগ্রস্ত অসুস্থ বাবা চলে গেলেন না ফেরার দেশে ___ ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন।

বাবার মৃত্যুর কথা শুনে জেলের চার দেয়াল ভারি হয়ে ওঠে ইসহাকের আর্তনাদ আর কান্নায়। পরবর্তীতে মাত্র ২ ঘন্টার জন্য বাবার জানাজা অংশ গ্রহণের জন্য প্যারোলে মুক্তির সুযোগ হয় অভাগা ইসহাকের।

তৃনমূলের এই স্বজন হারানো নেতা ইসহাক ও তাঁর পরিবারকে সান্ত্বনা দেওয়া ক্ষমতা আমাদের কারো নেই। খুনি অবৈধ হাসিনা সরকারের নিপীড়ন ও মামলা হামলায় লক্ষ-লক্ষ বিরোধী দলের নেতাকর্মী আজ কারাবন্দী ইসহাকের মত। আমরা জানি না অনেকের অসহায় আর্তনাদের কথা।

আমার বাবা এক সপ্তাহ আগে চলে গেছেন না ফেরার দেশে। আমার সৌভাগ্য হয়নি শেষ বারের মতো বাবার মুখটুকু দেখবার, পারিনি বাবার লাশের পাশে দাড়িয়ে ছোট ভাইকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদতে। আমাদের এই আর্তনাদ আর বুঁকের ভিতর পাথর চাঁপা দিয়ে রাঁখা কষ্ট রবে আর কতদিন? স্বাধীন দেশে আর কত দিন আমরা রইবো পরাধীনতার চৌচাগারে? আর কতদিন নিপীড়নের চার দেয়ালের এই বন্দী জীবন? আর কতদিন?

লক্ষ-লক্ষ নেতাকর্মী আজ পরিবার ছাড়া, আর সন্তানের চিন্তায় মৃত্যূ পথযাত্রী হাজারও মা-বাবা। এই অমানবিকতার অবসান হোক, আমরা সবাই একটি সুন্দর, বসবাসযোগ্য বাংলাদেশই চাই না শুধু, আরও চাই শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের একটি মানবিক বাংলাদেশ।

এই অমানবিকতার দায় এই খুনি হাসিনা সরকার ও তার দলের নেতাকর্মীদের নিতে হবে। মহান আল্লাহ্ তাআলা যেন ইসহাকের বাবাকে জান্নাতবাসী করে এই দোয়া আমাদের। আমীন!

বাংলাদেশের তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক বৈদেশিক উপদেষ্টা এবং বিএনপির বিশেষ দূত জাহিদ এফ সরদার সাদীর ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া পোষ্টটি হুবহু তুলে ধরা হল।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর