বিচারপতি শামসুদ্দিন ‘কসাই’ : রিজভী

9216 rizviসময় বাংলা, ঢাকা: বেগম খালেদা জিয়াকে প্রধান বিচারপতির মুখপাত্র বলায় বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিককে এবার ‘কসাই’ বললেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘বিচারপতি শামসুদ্দিন হায়দার চৌধুরী মানিকের কথা শুনলে আপনার মনে হবে কোনো কসাই কথা বলছে। একজন বোধবুদ্ধি, বিচার সম্পন্ন মানুষের কথা নয়, যার কারণেই বিভিন্ন জায়গায় মানুষের রোষানলের মধ্যে তিনি পড়েন।’

তিনি বলেন, ‘আজকে যখন অপকর্মের নোংরা কর্মকান্ডগুলো উদ্ভাসিত হচ্ছে, মাননীয় প্রধান বিচারপতি আইনের পক্ষে ন্যায়ের পক্ষে কথা বলছেন তখন তারা সহ্য করতে পারছেন না। এই জন্যই তারা এই কথা গুলো বলছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি যদি খালেদা জিয়ার মুখপাত্র হয়ে থাকে তাহলে আপনি কার মুখপাত্র ছিলেন?এটা তো গোটা দেশবাসী জানেন। আপনি এত বড় একটি পবিত্রাঙ্গন উচ্চতর বিচারালয় যেটি একজন অসহার মানুষের শেষ ভরসার স্থলটিকে আপনারা বানিয়েছিলেন নির্বাহী বিভাগে আওয়ামী শাসকগোষ্টির তাদের কর্মসূচি বাস্তবায়নের কেন্দ্র। সেটা আপনারা যখন সম্পূর্ণভাবে করতে পারছিলেন না বলেই জেদ হচ্ছে, মনের ভিতরে প্রতিক্রিয়া হচ্ছে বলেই এই আক্রমন।’

‘একমাত্র মৃত মানুষ ছাড়া এই সব কথা বলার কারো অধিকার নেই।এই সব কথা বন্ধের প্রথম যে ভুমিকা রেখেছেন বিচারঙ্গনকে আদালতের মত একটি পবিত্র অঙ্গনকে কলুষিত করেছেন এই বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।’

রিজভী বলেন, ‘এই মানিক আদালত প্রাঙ্গনকে আওয়ামী কর্মসূচি বাস্তবায়নের কেন্দ্র বানানোর প্রচেষ্টা চালিয়েছিলেন। নানাবিধ অপকর্ম এবং দেশের গুণি মানুষদেরকে জোর করে তার বিচারিক যে ক্ষমতা সেই ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি এই কাজটি করেছেন।’ যোগ করেন তিনি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, আজকে যখন মাননীয় প্রধান বিচারপতি সব ন্যার্য ও আইনের কথা, সংবিধানের পক্ষে, আইনের শাসনের কথা বলেছেন, যে অন্যায় এক সময় বিচারপতি খায়রুল হক ও মানিকরা করেছিলেন একটি শাসক গোষ্ঠিকে ও নির্বাহী বিভাগকে তাদের ইচ্ছা পূরনের জন্য, তাদের সেই অপকর্মের কাজগুলো আজকে গোটা জাতি জানে। এদেশের বিটিশ আমল থেকে উচ্চ আদালত কখনও এতো অশ্রদ্ধেয় হয়ে পড়েনি।আদালত এতো বিতর্কিত হয়নি। বিতর্কিত করেছেন এই শামসুদ্দিন হায়দার মানিক ও খায়রুল হক।’

উল্লেখ, অবসরে যাওয়ার পর লেখা রায় ও আদেশ সোমবার বিকেলে আপিল বিভাগে জমা দেয়ার আগে সুপ্রিমকোর্টের মাজার গেটের বাইরে সাংবাদিকদের সামনে বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ‘অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিরা রায় লিখতে পারবে না, এই কথা বহু আগে খালেদা জিয়া বলেছিলেন। উনি (প্রধান বিচারপতি) খালেদা জিয়ার মুখপাত্র হয়ে বিএনপির এজেন্ডা চরিতার্থ করার জন্য এটা বলেছেন। উনার রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন