বৈরুত দূতাবাসে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিবস এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত

beirut embassy picসময় বাংলা, লেবানন : নানান আয়োজনের মধ্যদিয়ে বৈরুত দূতাবাসে পালিত হল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবর রহমানের ৯৭তম জন্মদিবস এবং জাতীয় শিশু দিবস। বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে আলোচনা সভা, প্রবাসি শিশুদের বঙ্গবন্ধুর জিবনী নিয়ে রচনা প্রতিযোগীতা, কবিতা আবৃতি প্রতিযোগীতা, এবং চিত্রাংকন প্রতিযোগীতায় সারাদিন আনন্দে মেতেছিল দূতাবাসের হলরুম।

প্রথমে রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকার ও দূতাবাসের কর্মকর্তারা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় বাংলাদেশি বিভিন্ন সংগঠনের নেতা ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা উপস্থিত ছিলেন। তারাও ফুল দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

কোরআন তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সভা শুরু হয়। তিলাওয়াত করেন দূতাবাসের কর্মকর্তা আবুল হোসেন। উপস্থাপনা করেন দিদারুল আলম। এ ছাড়া এদিন সকাল থেকেই দূতাবাসের হলরুমে বঙ্গবন্ধুর জীবনীর ওপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

আলোচনা সভার শুরুতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। এ ছাড়া প্রবাসী কয়েকজনও আলোচনায় অংশ নেন। তারা তাদের নিজ নিজ অভিজ্ঞতা থেকে আলোচনা করেন।

পরে শিশুদের প্রতিযোগীতায় সকল শিশুদের প্রথম, দ্বিতীয় স্থান, তৃতীয় স্থান বিজয়ি সহ সকল শিশুদের মাঝে শান্তনা পুরুষ্কার প্রদান করা হয়।

আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকার তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু হলেন এক মহান ব্যক্তিত্ব। অল্প কথায় বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে আলোচনা করা সম্ভব নয়। তার অসীম সাহস ও অকুতোভয় নেতৃত্বে আমরা আমাদের স্বাধীনতা অর্জন করেছিলাম। এ মহান ব্যক্তির জন্ম না হলে আমরা হয়তো আজও পরাধীন থাকতাম।Capture

তিনি বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন গুণাবলি তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন ক্যারিসমাটিক নেতা। তার কণ্ঠস্বরে ছিল এক সম্মোহনী ক্ষমতা। তিনি সহজেই তার এ ক্ষমতা দিয়ে মানুষকে আপন করে নিতে পারতেন। তিনি দেশের মানুষকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন এবং জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তাদের জন্যই জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। বঙ্গবন্ধুকে একজন প্রাগম্যাটিক নেতা হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, চুয়ান্নর নির্বাচন, ছেষট্টির ছয় দফা, উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান সত্তরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিশাল বিজয় তাঁর প্রাগম্যাটিক নেতৃত্বেরই বহিঃপ্রকাশ।

বক্তব্য দিচ্ছেন আবদুল মোতালেব সরকারবঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে জাতীয় শিশু দিবস ঘোষণাকে অত্যন্ত সঠিক সিদ্ধান্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের ভালোবাসতেন। বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন আলোকিত মানুষ। তার জন্মদিন জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালিত হওয়ায় শিশুরা তার জীবনী সম্পর্কে জানতে উৎসাহী হবে এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাদের জ্ঞান ও ভালোবাসা বৃদ্ধি পাবে। শিশুরাই জাতির ভবিষ্যৎ কর্ণধার। তাই তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সকলের সজাগ থাকত হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বর্তমান সরকার শিশুদের মেধা বিকাশে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তিনি উপস্থিত সকলকে তাদের শিশু সন্তানদের বঙ্গবন্ধুর জীবনী সম্পর্কে জানানোর জন্য অনুরোধ করেন।

আবদুল মোতালেব সরকার লেবাননপ্র বাসী সকল বাংলাদেশিদের স্থানীয় আইন-কানুন মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে যে কোনো সমস্যার প্রয়োজনে দূতাবাসকে অবহিত করার জন্যও অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ দূতাবাস আপনাদের সকলের। তিনি দূতাবাসের গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন