ভিশন ২০৩০ ও বর্তমান রাজনীতি

জসিম উদ্দীন সরকার: মনে হচ্ছে একটু জমেই উঠছে বর্তমান বাংলাদেশের রাজনীতি, ‘টক অফ দি বাংলাদেশ’ এ পরিনিত হয়েছে বাংলদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির দেয়া ভিশন ২০৩০। ভিশন ২০৩০ ঘোষনার পর থেকে আওয়ামী লীগের ভিতরেও পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ ধরেই নিয়েছে বিএনপি নির্বাচনে যাবে বলে এই ভিশন ঘোষনা করলেন।
ভিশন নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের মন্তব্য হচ্ছে বিএনপি তাদের দর্শন অনুকরণ করছে, কাজেই এই ভিশন থেকে নতুনত্বের কিছু পেলনা বাংলাদেশ বলে মনে করেন তারা। ভিশন প্রথম শুরু করেছিল আওয়ামী লীগ। আবার বিএনপির নেতারা বলছে ২০০১ সালে বিএনপি প্রথম ভিশন ঘোষনা করেছিল।

বিএনপির ভিশনকে আওয়ামী লীগের কিছু নেতা অবশ্য অন্য ভাবে ব্যখ্যা করেছেন। খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, যারা নতুন করে ভিশন ২০৩০ প্রস্তাব করে, তারা অহাম্মকের স্বর্গে বাস করে। শুধু তিনি নন, দলের মহাসচিব ওবাদুল কাদের এবংকি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী এই ভিশন নিয়ে বিভিন্ন মত দিমত পোষন করছেন। আওয়ামি লীগের মিত্র সংগঠন গুলোত রয়েছেই।

তবে আলোচনা সমালোচনার শীর্ষে রয়েছেন সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। তার ফেসবুক স্টাটাসে তিনি লিখেন, খালেদা জিয়া নাকি ২০৩০ সালের মধ্যে দেশে 3g আনবে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে দেশে 4g চলে আসছে। আর এনিয়ে এই মন্ত্রীকে পরতে হয় জনরোষে, কমেন্টে তার স্টাটাসের বিরুদ্ধে ঝড় তুলে সুশাল মিডিয়া ব্যবহার কারী সচেতন নাগড়িকরা। বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক বৈদাশিক উপদেষ্টা ও বিএনপির বিশেষ দূত জাহিদ এফ সরদার সাদী সহ হাজার হাজার ফেসবুক ব্যবহার কারী মন্ত্রীর স্টাটাসের জবাব দেন। অবশ্য এর কোন প্রতি উত্তর মন্ত্রীর কাছ থেকে মেলেনি।

বিএনপির দেয়া ভিশন ২০৩০ এর 3g’র মানে হচ্ছে “গুড পলিসি, গুড গভর্ন্যান্স ও গুড গভর্মেন্ট” অর্থাৎসুনীতি, সুশাসন ও সু-সরকার। আর ডিজিটাল স্বপ্ন বুকে ধারণ করা সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এর অর্থ ইন্টারনেটকে বুঝেছেন।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভিশন ২০৩০ এর ব্যখ্যা দিয়ে বলেছেন, বাংলাদেশে জনগনকে তাদের অধিকার ফিরিয়ে দিয়ে দেশে গনতন্ত্রের ধারা বজায় রেখে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা বিএনপির মূল লক্ষ। আর এই লক্ষে পৌঁছতে গেলে ভিশন ২০৩০ বাস্তবে রুপ দিতে হবে।

আওয়ামী লীগের নেতাদের সমালোচনার জবাবে মিজা ফখরুল বলেন, বিএনপির দর্শন অনুকরন করে আওয়ামী লীগ তাদের রাজনৈতক দর্শন, কর্মসূচী পরিবর্তন করছে। বিএনপিই প্রথম ২০০১ এ ভিশন ঘোষনা করেছিলেন, যা সে সময়ের পত্রিকা খুঁজে দেখলে পাওয়া যাবে। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ভিশন ২০৩০ কে ফাঁপা বেলুন বলেছেন, তিনিতো এই ভিশন পুরোটা পড়েননি। তিনি এই ভিশনের কি বুঝবেন।

অনুকরন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেছেন, বিএনপি বহু দলীয় গনতন্ত্র করেছিলেন, তার আগে ওনারা একদলীয় বাকশাল করেছিলেন, পরবর্তিতে আওয়ামী লীগ জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গনতন্ত্রের রাজনীতিতে নিবন্ধন হয়ে কাজ করেছে। ভিএটি বিএনপি চালু করে, নারী ও শিশু মন্ত্রনালয় বিএনপি সরকার করেছে, যুব মন্ত্রনালয় বিএনপি করেছে, প্রবাসী মন্ত্রনালয় বিএনপি প্রথম করে, আইটি মন্ত্রনালয় বিএনপি প্রথম চালু করেছে। তাহলে আমরা না, আওয়ামী লীগ আমাদের অনুসরন করেছে।

পরিবেশ নিয়ে প্রথম কাজ করে বিএনপি সরকার, পলিথিন ব্যাগ, বেবী টেম্পু বা যেসব থেকে ধুঁয়া ছড়ায়, সেগুলো বিএনপি নিষিদ্ধ করেছে বলেই আজ ঢাকা শহর সেই ধুঁয়ার তীব্র গন্ধ পেতে হয় না। বিদেশে কর্মসংস্থান এবং পোষাক শিল্প যে দুটি বাংলাদেশের উন্নয়নের সবচেয়ে বড় অংশিদার তা জিয়াউর রহমানের অবদান। তিনি বলেন, এসব কেউ মনে রাখে না, আর গলাবাজি করে বিএনপি নাকি আওয়ামী লীগকে অনুসরন করে।

অনুকরন প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ভিশন-২০২১ কর্মসূচি ঘোষণায় আওয়ামী লীগের নিজেদের কোনো বাহাদুরি নেই, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) রাজনৈতিক কর্মসূচি নকল করে আওয়ামী লীগ ভিশন-২০২১ ঘোষণা করেছিল।

বেশী ভাগ বিশ্লেষকদের মতে ভিশন ২০৩০ বাংলাদেশের স্বপ্ন, যা বাস্তবায়ন হলে দেশ চলে আসবে অনেক সামনে, বিশ্বের উন্নত দেশগুলির মধ্যে বাংলাদেশ হবে একটি উন্নত দেশ।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন