মানবজাতি ধ্বংসে শক্তিশালী রোবট সেনাবাহিনী তৈরি দ. কোরিয়ার!

সময়বাংলা, ডেস্ক: মানবজাতি ধ্বংসে সক্ষম এমন ধরনের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন রোবট সেনাবাহিনী গোপনে তৈরি করছে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়। এমনটাই জানিয়েছেন, এআই অর্থাৎ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) গবেষকরা।

এ বিষয়ে সতর্কবার্তা দিয়ে শীর্ষ এআই গবেষকরা দাবি করেছেন, কোরিয়া অ্যাডভান্সড ইনস্টিটিউট অব সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (কাইস্ট) এআই প্রযুক্তি বিষয়ে অস্ত্র প্রস্তুতকারী সংস্থা হানহা সিস্টেমের সঙ্গে কাজ করে এ প্রযুক্তি তৈরি করছে।

এদিকে কাইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে বয়কট করে ৩০টি দেশের পঞ্চাশ জনের বেশি এআই গবেষক একটি চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন এবং এআই প্রযুক্তি অপব্যবহারের পরিকল্পনার ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

গবেষকরা এটিকে প্যানডোরার বাক্স হিসেবে অভিহিত করেছেন এবং তাদের মতে, যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তি এবং স্বয়ংক্রিয় ধ্বংসাত্মক রোবট ব্যবহার হওয়া উচিত নয়।

ধ্বংসাত্মক উদ্দেশ্যে এআই রোবট তৈরির সম্ভাবনা নিয়ে গবেষকরা উদ্বেগ প্রকাশের পাশাপাশি, এ ধরনের অস্ত্র তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের নেতৃত্ব দিতে পারে বলেও দাবী করেছেন।

গবেষকদের স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘এই প্যানাডোরার বাক্স বন্ধ করাটা কঠিন হবে যদি তা খোলা হয়।’ এরইমধ্যে সিডনির নিউ সাউথ ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক টোবি ওয়ালস লিখিত চিঠিটি কাইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি অধ্যাপক সুং-চুল শিন বরাবর পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, ‘এটা খুব দুঃখজনক যে কাইস্টের মতো মর্যাদাপূর্ণ একটি বিশ্ববিদ্যালয় অস্ত্রের প্রতিযোগিতার গতি বাড়ানোয় শামিল হয়েছে। তাই আমরা প্রকাশ্যে ঘোষণা করছি যে, আমরা কাইস্টের সঙ্গে সব ধরনের সহযোগিতামূলক কার্যক্রম বয়টক করবো যতক্ষণ না পর্যন্ত কাইস্ট সভাপতি আশ্বাস দিচ্ছেন যে, এই সেন্টারে স্বনিয়ন্ত্রিত অস্ত্র গবেষণা বন্ধ করা হবে।’

সময়বাংলা/আইজু

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন