মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার : ননী-তাহেরের ফাঁসি

সময় বাংলা, ঢাকা:

Capture3মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় নেত্রকোনার মো. ওবায়দুল হক তাহের ও আতাউর রহমান ননীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। আজ মঙ্গলবার দুপুরে বিচারপতি মো. আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বেঞ্চে এ রায় ঘোষণা করা হয়। ট্রাইব্যুনালের অপর সদস্যরা হলেন বিচারপতি শাহীনুর ইসলাম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দী।

তাহের ও ননীর বিরুদ্ধে আনীত ছয়টি অভিযোগের মধ্যে চারটিতে তাদের দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। এর মধ্যে তিন ও পাঁচ নং অভিযোগে তাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। এক ও দুই নম্বর অভিযোগে দেয়া হয় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। আর অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় চার ও ছয় নং অভিযোগ থেকে তাদের খালাস দেয়া হয়।

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ওই দুজনকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। গত ১০ জানুয়ারি মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রেখেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। এর আগে মামলাটি পরবর্তী আদেশের জন্য ট্রাইব্যুনালের কজলিস্টে আসে। পরে গতকাল সোমবার ট্রাইব্যুনালের এজলাস কক্ষে বিচারপতিরা মামলার রায় ঘোষণার দিন নির্ধারণের আদেশ দেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন মোখলেসুর রহমান বাদল, সাবিনা ইয়াসমিন মুন্নী প্রমুখ। অন্যদিকে আসামিপক্ষে শুনানি করেন আবদুস সোবহান তরফদার ও গাজী এম এইচ তামিম। গত বছরের ১৩ আগস্ট তাহের ও ননীকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন ট্র্রাইব্যুনাল। একই সঙ্গে ১৪ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন।

গত ১২ আগস্ট ওই দুজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। ট্রাইব্যুনালের আদেশের ভিত্তিতে নেত্রকোনা পুলিশ ওই দিন তাঁদের গ্রেপ্তার করে। আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত ছয়টি অভিযোগের ওপর বিচারকার্য পরিচালনা করে ট্রাইব্যুনাল। তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদনে থাকা চারটি অভিযোগ থেকে দুটি বাড়িয়ে আনুষ্ঠানিক অভিযোগে (ফরমাল চার্জ) ছয়টি অভিযোগ দাখিল করেছিলেন প্রসিকিউশন। ওই ছয়টি অভিযোগকেই আমলে নিয়ে অভিযোগ গঠন করা হয়।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন