“দাম্ভিকতা ‘না’ রাজনৈতিক মরণের কথা চিন্তা করুন”: জাহিদ এফ সরদার সাদী

সময় বাংলা ডেস্ক: ঢাকা উওর মহানগর অবৈধ মেয়র – মেয়র হওয়ার পূর্বেকার সময়কার কথা বলচ্ছি আমি তাঁকে পছন্দ করতাম ভদ্র লোক ছিলো, কিন্তু হাসিনার আশির্বাদে ক্ষমতার লোভ্য দাম্ভিকতা ও পেশীশক্তি দেখিয়ে নির্বাচনে কিভাবে জয়ী হয়েছিল বিশ্বমিডিয়ার মাধ্যমে সেই দিন শুধু আমরাই নয় সারা বিশ্ববাসী সেই চিত্র দেখেছিল। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নির্বাচনী প্রচারণার সময় কার নির্দেশে সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ীতে হামলা করা হয়েছিল আপনাদের কি তা মনে পরে? শহীদ সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী’কে রাষ্ট্রপতির নিকট প্রান ভিক্ষা চাইতে কে বলেছিলেন? আপনাদের কি তা মনে আছে?মেয়র আনিসুল হক মারা যাবার সংবাদে, আধুনিক যুগে সোশাল মিডিয়াতে প্রথমে অনেক জাতীয়তাবাদীরা নিজ নিজ টাইমলাইনে শোক প্রকাশ ও জান্নাত নসীবের কামনা না করলেও পরে করেছে যখন দেখেছে অতি উৎসাহিত বিশেষ ক্ষমতা বলে দলের “প্রেস বিজ্ঞপ্তি গংরা” দেশনেত্রীর নামে শোক প্রকাশ করেছে তখন। একই দিনে দেশনেত্রীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশের পরেও মৃতের প্রতি কোন প্রকার ক্ষোভ ও অভিমান না রেখে দেশনেত্রীর গাড়ীতে হামলার কথা আর জোর করে মেয়র হবার কথা প্রায় সকলেই ভূলে গেছেন তখন।

পক্ষান্তরে দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ক্লিন ইমেজের অধিকারী, সর্বাধিকবার নির্বাচিত এমপি, সাবেক মন্ত্রী ও সাবেক ক্যাবিনেট সচিব এমকে আনোয়ার মারা গেলে কোন আওয়ামীগারকে জান্নাত কামনা করাতো দুরের কথা দুঃখ প্রকাশ করতে দেখিনি। আর সবচেয়ে অবাক হয়েছি যখন বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি আব্দুর রহমান বিশ্বাসের জানাজার নামাজ রীতি অনুযায়ী সংসদ ভবনের দক্ষিন প্লাজায় আদায়ের অনুমতি হাসিনার অবৈধ সরকার দেয় নি তখন।

আজ মনে হচ্ছে দলীয় শোক বার্তা আর বিএনপির মানুষের ফেসবুকের যাতায় অবশেষে মেয়র আনিসুল হক পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন, না ফেরার দেশে। “ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাইহি, রজিউন”। বিএনপি ও আওয়ামীলীগ এর পার্থক্য সহজে সাধারন মানুষ অনুধাবন করতে পারে শোক বার্তা ছাড়াই। কিন্তু এই রাজনৈতিক সহানুভূতির সনদের অভিজ্ঞতা কি আমাদের কাজে আসবে নাকি কাল নাগিনী সাপের দংশনের শিকার থাকবে চলমান। হাসিনার এই জালিম সরকারের দংশন থেকে কি আমরা কিছুই শিক্ষা গ্রহন করিবনা?

আনিসুল হকের সাথে আমাদের অনেক হিসাব-নিকাশ বাকি ছিল। এসব না মিটিয়েই তিনি চলে গেলেন। এ কেমন বিচার? আর আমরা কিনা শোক বার্তা নিয়ে অস্থির।

রাজনিতিতে ভুল ত্রুটি খারাপ মন্দ বলতে কিছু নেই, কিন্ত আছে সঠিক সিদ্ধান্তের প্রভাব। রাজনৈতিক দূরদর্শিতা আর সঠিক সিদ্ধান্তের কাঁঠগড়ায় আমরা হেড়ে যাই প্রতিনিয়ত, তবে কেন? কাদের জন্য?? আমরা কি পারি না যুদ্ধে শত্রুর থেকে কিছু শিক্ষা গ্রহণ করতে???

তাই আমি সর্বশেষ একটা কথাই বলতে চাই, সবাই রাজনৈতিক মরণের কথা চিন্তা করেন, দাম্ভিকতা না।

জাহিদ এফ সরদার সাদী
বাংলাদেশের তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক বৈদেশিক উপদেষ্টা এবং বিএনপির বিশেষ দূত ।

লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন