রামগঞ্জে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

দেলোয়ার হোসেন মৃধ্যা, সময় বাংলা প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৩নং ভাদুর ইউনিয়নের চিলকা চাঁদপুর গ্রামের বেপারী বাড়িতে রুনু বেগম (২৭) নামের এক এক গৃহবধুর লাশ ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বেপারী বাড়ির রাজমিস্ত্রী জাফরের নিজ ঘরে এঘটনা ঘটেছে।

এদিকে ঘটনার পর থেকে গৃহবধুর স্বামী শশুর শাশুড়ী সহ পরিবাররের সবাই পলাতক রয়েছে। খবর পেয়ে দুপুর ১২টায় রামগঞ্জ থানা পুলিশের এস আই আবদুল মোমিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে রুনুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, ২০১০ইং সালে উপজেলার ভাদুর ইউপির সমেষপুর গ্রামের তালেব আলী বাড়ির সিরাজুল ইসলামের মেয়ে রুনু আক্তারের সাথে একই ইউপির চিলকাচাঁনপুর গ্রামের বেপারী বাড়ির নুর হোসেনের রাজমিস্ত্রী ছেলে জাফরের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কয়দিন পর থেকে স্বামী স্ত্রী সঙ্গে পারিবারিক বিষয় নিয়ে সবসময় ঝামেলা লেগেই থাকতো। এরই ধারা বাহিকতায় সোমবার দিবাগত গভীর রাতে জাপর ও তার স্ত্রী রুনুর সাথে শশুর বাড়ী থেকে ঈদের জামা কাপড়, সেমাই চিনি নিয়ে আনার জন্য বল্লে রুনা এর প্রতিবাদ করে। তাৎক্ষনিক স্বামী জাফর তাকে বেদম মারধর করে। পরে ভোর রাতে রুনু সেহেরী খাওয়ার পর সমেষপুরে তার মা কুলছুকে ০১৯৭১৬২৩৬৬৮ ফোন করে মারধর সহ ঘটনার বিস্তারিত বলে।

গৃহবধু রুনুর মা কুলছুল আক্তার জানান, মোবাইলে কথা বলার সময়ই মেয়ের কাছ থেকে জাপর ফোন কেড়ে নেয়। এর পরে আর কিছু জানি না। সকাল ১০ টায় বাড়ির লোকজন মৃত্যুর খবর ফোন করে জানায়।

মুঠোফোনে রুনার স্বামী জাফর জানান, মারধরের বিষয়টি সঠিক নয়। আমার স্ত্রী রুনার সাথে কয়েকজনের পরকিয়া সম্পর্ক রয়েছে। তারা এ ঘটনা ঘটাতে পারে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন