রোহিঙ্গা ইস্যুতে ধরা পড়ে গেছে হাসিনা সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতি: ব্যারিস্টার সায়েম

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিএনপি সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার আবু সালেহ মো. সায়েম বলেছেন, “হাসিনা সরকার রোহিঙ্গা ইস্যুকে পূঁজি করে অনৈতিক ফায়দা লুটতে চাচ্ছে। এ বিষয়ে তাদের আচরণ ভন্ডামি ও দ্বিচারিতায় পরিপূর্ণ। প্রথমে তারা রোহিঙ্গাদের জঙ্গি ও সন্ত্রাসী আখ্যা দিলেও এখন আবার অতিরিক্ত দরদ দেখাতে শুরু করেছে।”

গত কয়েক সপ্তাহ যাবত মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সে দেশের সেনাবাহিনী বর্বরোচিত ও নারকীয় তাণ্ডব, নির্বিচারে হত্যা, লুণ্ঠন ও ধর্ষণ চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত হয়ে ইতোমধ্যে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। সামগ্রিক বিষয়ে এ প্রতিবেদকের সাথে কথা বলেন ব্যারিস্টার সায়েম। তিনি বলেন, “এটি একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা যার টেকসই সমাধান হতে হবে আন্তর্জাতিকভাবে। তবে মূল উদ্যোগটা কিন্তু গ্রহণ করতে হবে বাংলাদেশকেই যেহেতু রোহিঙ্গারা আমাদের এখানেই আশ্রয় নিয়েছে।”

মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর পক্ষে থাকলেও দীর্ঘদিন এতসংখ্যক শরণার্থীর বোঝা বহন করা বাংলাদেশের জন্য সমস্যাসঙ্কুল বলে মনে করেন তারেক রহমানের এ উপদেষ্টা। তাঁর মতে, “জাতিসংঘ, ওআইসি ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে তড়িৎ কাজে লাগাতে হবে মিয়ানমারের ওপর বিশেষ চাপ সৃষ্টি করার জন্য যাতে তারা যথাযথ প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে বাধ্য হয়।”

ব্যারিস্টার সায়েম আরও বলেন, “রোহিঙ্গা ইস্যু সঠিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকার। জনসমর্থন না থাকায় তারা মূলত অনুসরণ করছে ভারতের ব্যবস্থাপত্র। এতে তারা না হতে পারছে রোহিঙ্গাদের প্রতি শতভাগ মানবিক না রক্ষা করতে পারছে ছিটেফোঁটা বাংলাদেশের স্বার্থ। বরং তাদের নতজানু পররাষ্ট্রনীতি ধরা পড়ে গেছে ১৮বার মিয়ানমারের হেলিকপ্টার বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘনের ঘটনায়। জাতি হিসেবে এটা আমাদের জন্য নিতান্তই লজ্জার বিষয়।”

এক প্রশ্নের জবাবে ব্যারিস্টার সায়েম বলেন, “রোহিঙ্গাদের নিয়ে বিএনপির অবস্থান পরিষ্কার। আমরা সর্বাত্মকভাবে সরকারকে সহযোগিতা করতে চাই এ সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে। বিএনপি শুরু থেকেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে অসহায় নারী-পুরুষ-শিশুদের প্রতি। এটা আমাদের কর্তব্য। কিন্তু রোহিঙ্গারা নিজেদের বসতভিটা ছেড়ে সারাজীবন বাংলাদেশে পড়ে থাকুক এটাও বিএনপি চায় না। সেজন্য আমাদের চেয়ারপার্সন আন্তর্জাতিক মহলের কাছে চিঠিও লিখেছেন।”

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার সুবাদে আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী শেখ হাসিনার জন্য নোবেল পুরস্কার আশা করছেন এমন খবরে বিস্মিত হন ব্যারিস্টার সায়েম। তিনি বলেন, “শেখ হাসিনা বিএনপি নেতাকর্মীসহ গোটা দেশের মানুষদের নিজ দেশেই রোহিঙ্গা বানিয়ে রেখেছে। আর সে কিনা মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের জন্য কান্নাকাটি করে নোবেল বাগাতে চায়! বাবার বাড়ির আব্দার!!”

বিএনপির এ নেতা মনে করেন, তার দল রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থাকলে মিয়ানমার এতটা বাড়াবাড়ি করার সাহস পেতো না।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর