লন্ডনে এশিয়ান কারী এওয়ার্ডের ৬ষ্ট আসরে আজীবন সম্মাননা পেলেন কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা

বৃটেনের কাডিফ থেকে মকিস মনসুর: বিপুল সংখ্যক লোকের উপস্থিতিতে ও জমজমাট আয়োজনে গত ২৩ শে অক্টোবর সেন্ট্রাল লন্ডনের মেফেয়ারের গ্রসভেনর হোটেলের গ্রেট রুমে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো এশিয়ান কারী এওয়ার্ড ২০১৬।

বিবিসির সংবাদ পাঠিকা কেইট সিলভারটন উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে এশিয়ান কারী এওয়ার্ডের ফাউন্ডার ও বিশিষ্ট কমিউনিটি লিডার ইয়াওর খান কারী ইন্ড্রাস্ট্রি সংকট তুলে ধরে এর সমাধানের জন্য সকলের ঐক্য কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে ১০টি রিজিওনের সেরা ১০টি রেস্টুরেন্ট এওয়ার্ড ছাড়া ও বাংলাদেশী, ইন্ডিয়ান,পাকিস্তানী, চাইনিজ, মালয়েশিয়ান ও টার্কিস ক্যুজিনকে স্ব স্ব সাফল্যের জন্য মূল্যয়ান করা হয়। বিখ্যাত নবাব রেস্টুরেন্টের মালিক মাহবুব হোসেনকে দেয়া হয় লাইফ টাইম এচিভম্যান্ট এওয়ার্ড ও প্রাইড অব এশিয়ার ওয়াসিম হাসান সেলিমও এওয়ার্ড লাভ করেন।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ট্রেজারী সেক্রেটারী জন এলিসন এমপি. টম ব্রেক এমপি,পট কালিস এমপি, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খন্দকার তালহাসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাই কমিশনের প্রতিনিধিবৃন্দ।

এওয়ার্ড অনুষ্ঠান যৌথভাবে উদ্যোগ গ্রহন করে এশিয়ান ক্যাটারিং ফেডারেশন ও ফেডারেশন অব বাংলাদেশী ক্যাাটারার্স। সহযোগিতায় ছিলেন কুবরা বিয়ার, জাস্ট ইট এবং স্কয়ার মাইলস ইন্সুরেন্স সহ বিভিন্ন স্পোন্সাররা।

এদিকে এশিয়ান কারী এওয়ার্ডের অনুষ্ঠানে সংগীত জীবনের বর্ণাঢ্য ৫০ বছর পূর্ণ করায় আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন উপমহাদেশের কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লাকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়। পুরস্কার নেওয়ার সময় রুনা লায়লার সঙ্গে ছিলেন তার দুই নাতি জাইন ও অ্যারন। কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লাা আজীবন সম্মাননা গ্রহনের পর সাংবাদিক মকিস মনসুর আহমদের সাথে একান্ত আলাপকালে এশিয়ান কারী এওয়ার্ড অনুষ্ঠানের ভূয়শী প্রশংসা করেন এবং তাকে সম্মাননা প্রদান করায় আয়োজকদের অভিনন্দন জানান।

কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা পুরস্কার গ্রহণের পর তার সঙ্গে সম্মিলিতভাবে ছবি তোলেন লন্ডনের মেম্বার অব পার্লামেন্ট, হাউস অব লর্ডস অ্যান্ড কমন্স. মেয়রস ও আগত অতিথিবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে আগত বক্তারা বলেন, এশিয়ান কারী শিল্প বৃটেনের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করেছে। কর্মসংস্থান হয়েছে কয়েক লাখ মানুষের। এই শিল্প বৃটেনের মাল্টি কালচার সোসাইটিকেও প্রমোট করছে। কিন্তু সরকারের নানা উদ্যোগ শিল্পকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। বক্তারা এই শিল্পকে রক্ষায় বৃটিশ রাজনীতিবিদদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।

এশিয়ান কারী এওয়ার্ডের ফাউন্ডার ইয়াওর খান আরও বলেন, ব্রেক্সিট কারী শিল্পকে মারাত্মক ক্ষতির সম্মোখীন করবে। তিনি বলেন, রেফারেন্ডামের পূর্বে যেসকল রাজনীতিবিদরা বলেছিলেন, ব্রেক্সিট হলে, কারী শিল্পের সংকট কেটে যাবে। তাদের এখন এই শিল্পের পাশে এসে দাঁড়ানোর আহবান জানান।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন