লেবাননে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যান সংগঠন বিজয় দিবস পালন

সময় বাংলা/লেবানন :

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

লেবাননের হাইছিল্লুম এলাকায় অবস্থিত আল-রিফাত হোটেলের হল রুমে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যান সংগঠন লেবাননের উদ্দোগে মহান বিজয় দিবস উদযাপন হয়েছে।

বুধবার রাত ৯টায় শুরু হয় অনুষ্ঠান, হলের কানায় কানায় লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। প্রবাসিরা নিজের দেশ কে কত ভালবাসে তার নমুনা দেখা যায় এই অনুষ্ঠানে।জয় বাংলা,বাংলাদেশ জিন্দাবাদ স্লোগানে ভরে ঊঠে হলকক্ষ।

বিজয় দিবস উদযাপনের সভায় সভাপতিত্ব করেন,বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যান সংগঠন লেবাননের সভাপতি ওসমান গনি, সভাটি পরিচালনা করেন,সাধারন সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান। এছারা বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক কবির সরকার,এবং সাংবাদিক জসিম উদ্দীন সরকার,শফিকুর রহমান সহ অনেকে।

সভার শুরুতে সকল মুক্তিযোদ্ধে শহিদদের রুহের মাগফেরাত কামনায় এবং সকল মুক্তিযোদ্ধাদের দীর্ঘয়ু কামনা দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

সভায় বক্তাব্যে বক্তাগন বলেন, ভাষা শহিদ সালাম,বরকতদের যেমন ভুলা যায় না,তেমনি যাদের জন্য আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেলাম, তাদের কেউ ভুলা যাবেনা। বাংলার বুকে তাদের নাম স্বর্নাক্ষরে লেখা থাকবে।

বক্তাগন আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু যদি জন্ম না নিতেন, হয়ত আমরা বাংলাদেশ পেতাম না ঠিক তেমনি সেদিন যদি জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষনা না দিতেন, হয়ত দেশ স্বধীন হতনা। আজকের এই বিজয় দিবস হতনা।

তাই অনুষ্ঠানের সকলে বঙ্গবন্ধু মজিবর রহমান এবং জিয়াউর রহমানকে সকল রাজনিতির উর্ধে রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকারের নিকট বিশেষ আহবান করেন।

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

সভাপতি তার বক্তব্যে তিনি বলেন,আমরা শ্রমিক কল্যান সংগঠন শ্রমিকদের কল্যানে কাজ করব। কোন রাজনিতি প্রবাসে আমরা বিশ্বাস করিনা। আমরা বিশ্বাস করি আমরা সকল বাংলাদেশী লেবাননে ভাই ভাই।

প্রবাসিদের সকল মতভেদ ভুলে বাংলাদেশের সুনাম রক্ষার স্বার্থে সকল কে এক কাতারে চলার আহবান জানান তিনি।

লিসিকু কম্পানীর শ্রমিকদের উদ্দোগে বিজয়ের দিনে নিজেদের কন্ঠে দেশাত্ব বোধক গান পরিবেশন করা হয় এবং বিজয় দিবস উপলক্ষে ৭১সালের মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক নাটক প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন,লোকমান হোসেন,মনির হোসেন,মিন্নত আলী, সোহেল মিয়া,কালাম মিয়া,আনোয়ার গাজী,আশিক রহমান,মাসুদ পারভেজ, সোহেল রানা,সাহাব উদ্দীন,রাফি হোসেন,সাইফুল মিয়া,হাসনাত রহমান, আব্দুল্লাহসহ, হাইছিল্লুম,লাইলাকি, সইফাত সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত সাধারন প্রবাসি বৃন্দ।

সব শেষে প্রীতি ভোজের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন