সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরুধী আলোচনা সভা করেছে বৈরুত দূতাবাস

Untitled-1সময় বাংলা, লেবানন: রবিবার বিকালে বৈরুত দূতাবাসের উদ্যোগে প্রবাসিদের নিয়ে দূতাবাসের হল রুমে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরোধী আলোচনা সভা আয়োজন করে লেবাননে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস।

বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে সু-পরিচিত একটি দেশ, এদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ। আর এই উন্নয়নের প্রচেষ্টাকে বাঁধাগ্রস্থ করতে দেশেরই কিছু বিপদগামী নাগড়িক যাদের শূন্যতম ইসলামীক জ্ঞান নেই, তারা ইসলামের মিথ্যা দোহায় দিয়ে সন্ত্রাসবাদ এবং জঙ্গীবাদের মাধ্যমে বিশ্ববাসীর কাছে দেশের অর্জনকে দূর্নাম করার চেষ্টা করছে।

১লা জুনের আগে বাংলাদেশ এমনটি ভয়াবহ অবস্থা ছিলনা ঠিক এখন যেমনটি। গুলশানে হামলা তার পরপর শোলাকিয়ায় হামলা, এরপর কল্লানপুরে ঘটনায় দেশ এখন ভয়ভীতিকর অবস্থার মধ্যে রয়েছে। আর এই সন্ত্রাস এবং জঙ্গীবাদ কিভাবে মোকাবেলা করাযায়, দেশের ভাবমূর্তি রক্ষায় প্রবাসিদের কি কি ভূমিকা রাখতে হবে, এসব নিয়ে দূতাবাসের সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরোধী আলোচনা সভায় আলোচনা করেন রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার।

আলোচনা সভার শুরুতে পবিত্র কোরাআন তেলওয়াত করা হয়, এবং জঙ্গী হামলায় নিহতদের স্বরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার বলেন, জঙ্গীবাদ শুধু বাংলাদেশের সমস্যা নয় এটি আজ সারা বিশ্বের সমস্যা। ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। ইসলাম কখনো সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ স্বমর্থন করে না। সন্ত্রস, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের জিরো টলারেন্স নিতি মাথায় রেখে সকলকে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে একা জঙ্গীবাদ মোকাবেলা করা সম্ভব নয় এজন্য সকল বাংলাদেশিদের ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

লেবানন প্রবাসিদের উদ্দশ্যে তিনি বলেন, লেবানন প্রবাসিদের মাঝে পরপর বেশকিছু অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটেছে, এমনকি নিজেদের মধ্যে খুনা-খুনির ঘটনা পর্যন্ত ঘটেছে। বিভিন্ন হোয়াটস আপ গ্রুপে প্রবাসিরা যেসব অপ্রিতির ভয়েস মেসেজ পাঠায় তা বাংলাদেশ দূতাবাস এবং লেবাননের জেনারের সিকিউরিটি অবগত আছে। আর এইসব বিষয়ে যদি লেবানন সরকার তদন্ত্র শুরু করেন তাহলে বাংলাদেশিদের অবস্থা খারাপ হবার সম্ভবনা রয়েছে।

রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, বিভিন্ন হোয়াটস আপ গ্রুপের কুটুক্তি, একজন একজনকে হোমকি ধামকি ইতি মধ্যে দূতাবাস লিপি বদ্ধ করেছে। সিঙ্গপুর, ইতালী, মালয়েশিয়ায় কিছু বিপদগামীদের জন্য এমনিতেই বাংলাদেশীদের বদনাম হয়েছে। আর লেবাননের যদি এমনটি চলতে থাকে ভবিষ্যতে লেবাননের বাংলাদেশিদের থাকাই সমস্যা হতে পারে।

তাই রাষ্ট্রদূত সকল প্রবাসিদের লেবাননে অর্জিত বাংলাদেশের সুনামকে ধরে রাখতে সকল প্রকার অপকর্ম থেকে দূরে থাকা আহ্বান জানান। অন্যথায় দূতাবাস বাংলাদেশর সম্মান রক্ষার্থে এসব দমনে যা করা দরকার করবে। তিনিও বাংলাদেশ সরকারের জিরো টলারেন্স নিতি প্রবাসিদের জন্য ঘোষণা করেন।

আলোচনার শেষে এক প্রশ্নউত্তর পর্বে প্রবাসিদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার এবং সন্ত্রার, জঙ্গীবাদের উপর প্রবাসিদের বিভিন্ন মতামত গ্রহন করেন।

রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠান চলাকালে বাংলাদেশে সফররত এক অসহায় অসুস্থ মহিলাকে বাংলাদেশে যাওয়ার পর সূ-চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগীতা প্রদান করেন।

আলোচনা সভায় প্রবাসি রাজনৈতিক, অরাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ অশংখ্য প্রবাসিরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন