সৃজনশীল গবেষণালব্ধ শিক্ষা ব্যবস্থা চালু হলে বন্ধ হবে প্রশ্নফাঁস!

আরিফুল ইসলাম সাব্বির: শিক্ষা ব্যবস্থায় ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে চক ডাস্টার হটিয়ে জায়গা করে নিয়েছে আধুনিক ব্যবস্থা। কম্পিউটার,ট্যাবভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা আসলেও তাকে আমরা কতটুকু কাজে লাগাতে পারছি?
২০১৫-২০১৭ এর মধ্যেই দেশের প্রায় দুই হাজারের বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থার আওতায় আনা হয়েছে, আরো বাড়ানোর কাজ চলছে। থ্রিজির মাত্র কয়েকবছরের মাথায় ফোরজি ইন্টারনেট ব্যবস্থা এসেছে। তবে, শিক্ষাক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতির পূর্ণ ব্যবহার করা যাচ্ছে না।
বরং ইন্টারনেটের অপব্যবহার ব্যবহার করেই প্রশ্নফাঁসের ঘটনাকে মহামারি রুপ দেয়া হয়েছে। এর বিরুদ্ধেও তেমন কোন শক্তিশালী ব্যবস্থা নিতে পারেনি সরকার, উল্টো ইন্টারনেট স্লো রাখার মত হাস্যকর পদক্ষেপ নেবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিলো।

ডিজিটালাইজেশন কি শিক্ষা ব্যবস্থায় কতটা পরিবর্তন আনবে এই প্রশ্নের জবাবে প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেন, শিক্ষার আধুনিকায়ন হলে তাতে স্বচ্ছতা বাড়বে, অর্ধেক ডিজিটাল অর্ধেক এনালগ শিক্ষা দিয়ে ১৯৬০ আর ২০১৮ কে মিলিয়ে যে জগাখিচুড়ি উৎপাদন হয়েছে তার কারণেই সংকট তৈরি হয়েছে প্রশ্নফাঁসের।
“শিক্ষার ডিজিটাল রুপান্তর” শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্যে তিনি বলেন, পড়াশোনার সাথে সাথে ডিজিটাল পরীক্ষা ব্যবস্থা চালু করা গেলে প্রশ্নফাঁসের মতো ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা শূন্যে নেমে আসবে।

ডিজিটাল পদ্ধতিতে শিক্ষা ব্যবস্থা ও পরীক্ষা নেয়া হলে সেটা আরো স্বচ্ছ হবে, নকল বা প্রশ্নফাঁসের ঘটনা একেবারে বন্ধ হবে বলে মনে করেণ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক ফারজানা রহমান।
তিনি বলেন, শিক্ষার আধুনিকায়ন ও শিক্ষাকে আরো বাস্তবসম্মত, গবেষণালব্ধ করা গেলে এমনিতেই নকল বা প্রশ্নফাঁসের ঘটনা বন্ধ হয়ে যাবে।সেজন্যে বাজেটে আরো বরাদ্দ বাড়ানো দরকার।

ডিজিটাল পরীক্ষা পদ্ধতিই প্রশ্নফাঁস বন্ধের উপায় হতে পারে, তবে সেই ব্যবস্থা নেবার উপযুক্ত সময় এখনও আসে নি বলে মনে করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী বাবুল হোসেন।
একেতো নতুন ব্যবস্থা সেটায় অভ্যস্ত হয়ে উঠতেও সময় লাগবে বলে তিনি মনে করেন।

ছাত্র ইউনিয়ন নেতা তাহসিন মল্লিক বলেন, ডিজিটাল পদ্ধতিতে পাঠ ও পরীক্ষাই হোক অথবা প্রচলিত পদ্ধতি, জ্ঞান ভিত্তিক সৃজনশীল শিক্ষা ছাড়া শিক্ষার মান উন্নয়ন সম্ভব নয়।।এবং পরীক্ষা পদ্ধতি নিষ্কলুষ ও শিক্ষার মান উন্নয়নে কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছাই মুখ্য।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

এ বিভাগের আরো খবর