স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঘেরাও করে ডিপ্লোমা মেডিকেল শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

 বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত রাজধানীতে মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঘেরাও করে এসব দাবি জানায় তারা।

উচ্চ শিক্ষা, স্বতন্ত্র বোর্ড গঠন, পাশ করা ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়োগ এবং সরকারি-বেসরকারি ক্লিনিকে পদ সৃষ্টি ও ইন্টার্নশিপ ভাতা বাড়ানোর দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

বিক্ষোভরত শিক্ষাথীদের পক্ষে বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা মেডিকেল স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের (বিডিএমএসএ) সভাপতি মুরাদ হোসেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদের কাছে দাবির বিষয়ে স্মারকলিপি জমা দেন।

দাবির বিষয়ে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আজাদ বলেন, “কথা দিচ্ছি, তোমাদের যৌক্তিক দাবি আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তুলে ধরব এবং বাস্তবায়নে সব ধরনের সহায়তা করব।”

শিক্ষার্থীদের ‘উশৃঙ্খল’ আচরণ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “তোমরা ধৈর্য ধর, এক দিনে কোনো কিছু বাস্তবায়ন হয় না। যৌক্তিক দাবি অবশ্যই মেনে নেওয়া হবে।”

ডিপ্লোমা মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের তিন বছরে একাডেমিক শিক্ষা ও এক বছর সদর হাসপাতালে ইন্টার্ন হিসেবে কাজ করতে হয়, এরপর আর উচ্চ শিক্ষা নেওয়ার সুযোগ থাকে না বলে জানান শিক্ষার্থী দীপক চন্দ্র শীল।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়াররা যদি বিএসসি করতে পারে, আমরা কেন এমবিবিএস করতে পারবো না।

“ডিপ্লোমা মেডিকেলের সার্টিফিকেটের কোনো মূল্যায়ন চাকরির বাজারে নেই। আমাদের কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়োগ দেওয়ার নিয়ম থাকলেও বিগত সাত বছর ধরে নেওয়া হচ্ছে না।”

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে স্মারকলিপি জমা দেওয়ার পর বিডিএমএসএ সভাপতি মুরাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, “মহাপরিচালক আমাদের দাবি মেনে নেওয়ার  আশ্বাস দিয়েছেন, কিন্তু এর আগে আমাদের দাবি মেনে নেওয়ার কথা দিয়েও শেষ পর্যন্ত রাখেননি।

“যদি এক সপ্তাহের মধ্যে আমাদের দাবি মেনে নেওয়া না হয়, তাহলে আমরা ঢাকা ঘেরাও করব।”

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন