হাটহাজারীতে সন্তানদের জিম্মি করে মাকে পালাক্রমে ধর্ষণ: আটক ১

নিজস্ব প্রতিনিধি: উওর চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে ৬ বছরের ছেলে ও দেড় বছর বয়সী মেয়ের গলায় ছুরি ঠেকিয়ে মাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে তিন সন্ত্রাসী। গত বুধবার (১৭মে) দিবাগত মধ্যরাতে রোমহর্ষক, বর্বরোচিত ও ন্যাক্কারজনক এ ঘটনাটি ঘটেছে হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের ২নং গেইটের পূর্বে আলাওল দীঘি সড়ক সন্নিকটস্থ এলাকায়।

স্থানীয়রা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সোহেল(৩২)নামে একজনকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে। সোহেল ২নং গেইট এলাকারমফজল মেম্বার বাড়ীর মৃত আব্দুল শুক্কুরের পুত্র। এ ঘটনায় থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশ তদন্তের স্বার্থে এজাহারভূক্ত বাকী দুই ধর্ষকের তথ্য প্রকাশ করেনি।

ধর্ষিতার বর্ণনা অনুযায়ী, তার স্বামী ও দুই সন্তান নিয়ে চার বছর ধরে মফজল মেম্বার বাড়ীর জনৈক কায়সার উদ্দিনের ফার্মে সেমিপাকা ঘরে বসবাস করে আসছেন। বুধবার সন্ধ্যায় স্বামী তার বাসার সামান্য অদূরে নির্মিতব্য একটি বিল্ডিংয়ে যান। তিনি ওই বিল্ডিং এর নাইট গার্ড হিসেবে কাজ করেন। স্বামীর অনুপস্থিতিতে রাত সাড়ে বারোটার দিকে সন্ত্রাসী মোঃ সোহেল ও তার অপর দুই সঙ্গী ঘরে প্রবেশ করে তার ছেলের গলায় ছুরি ধরে। এসময় ছেলের কান্না শুনে তিনি সজাগ হলে সোহেলের সঙ্গীরা তাকেও ছুরি দিয়ে জিম্মি করে। এসময় তারা ছেলেদের জবাই করে খুন করার ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক ওই মহিলাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। তারা ধর্ষিতাকে বিষয়টি নিয়ে মুখ না খুলতে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে চলে যায়। পরে মহিলার চিৎকারে স্থানীয় ও তার স্বামী ঘরে এসে ঘটনা সম্পর্কে অবহিত হন।

এদিকে সকালে বিক্ষুব্ধ জনগণ মহিলার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ধর্ষক সোহেলকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। পরে থানা পুলিশের এসআই আরিফুজ্জামানা খান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ধর্ষিতার স্বামী বলেন, “আমার অনুপস্থিতি ধর্ষকরা আমার সন্তানদের সামনেই তাদের মাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। আমি তাদের দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।”

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (ওসি অপারেশন) মো. কামাল উদ্দিন জানান, “ধর্ষিতা নিজে বাদী হয়ে ৩ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন। ধর্ষিতাকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোহেলকে আটক করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের আটক করতে সর্বাত্বক চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।”

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন