বৈরুতে বাংলাদেশ দূতাবাসে বিজয় দিবস উদযাপন

সময় বাংলা/লেবানন : 

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

লেবাননে বাংলাদেশ দূতাবাসে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোতালেব সরকার।

প্রথমে মুক্তিযুদ্ধের প্রামান্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। তারপর বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পাঠ করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরে কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধু না হলে বাংলাদেশ হতনা আর আমরা বিজয়ের মুখ দেখতে পেতাম না। অথচ ৭১ এর অপশক্তি এখনো দেশে ধংশযজ্ঞ চালাচ্ছে। আর জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে আজ জঙ্গী দমন সহ, রাজাকারদের বিচার হচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত মোতালেব সরকার বলেন, আমরা দূতাবাসের কর্মকর্তাগন আপনাদের সুবিধার্থে লেবানন সরকারের নিকট বিভিন্ন সমস্যা কথা তুলে ধরেছি, ইতিমধ্যে অনেক সমস্যার সমাধান পেয়েছি, আগামী কিছু দিনের মধ্যে অবৈধভাবে বসবাস কারীগন কোনো রকম জরিমানা ছাড়াই বাংলাদেশে ফিরে যাবার সুযোগ পাবেন বলে লেবানন সরকার দূতাবাসকে জানিয়েছেন।

প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, লেবানন সরকার জানিয়েছেন তাদের নিকট বাংলাদেশের শ্রমিকদের বিষয়ে কয়েক হাজার অভিযোগ আছে। তিনি বলেন, কিছু কিছু কর্মী নতুন এসেই এক সপ্তাহ কাজ না করে পালিয়ে যায়, সেক্ষেত্রে ওই লোকদের সহযোগীতা করার কঠিন হয়ে যায়। তিনি বলেন, আপনারা যারা আপনাদের আত্বীয় স্বজন লেবাননে আনবেন তাদেরকে এগুলো থেকে বিরত রাখবেন, যাতে দুতাবাস আপনাদের সেবা দিতে পারে।

যারা এখনো মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট এমআরপি নেননি, তাদের অতি শীঘ্রই এমআরপি নেবার আহবান করে রাষ্ট্রদূত বলেন, হাতে লেখা পাসপোর্ট দিয়ে বাংলাদেশে যাওয়া কিংবা বাংলাদেশ থেকে লেবাননে আসা যাবেনা।

অনুষ্ঠানে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ, মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ ভূঁইয়া, আবুল বাশার প্রধান, আলী আকবর মোল্লা, রুবেল মিয়া, হামিদুল ইসলাম আলামিন, সোহেল মিয়া।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মানিক মোল্লা, বিল্লাল হোসেন বেপারী, রুহুল আমিন, শিপন মোল্লা, গাজী রফিক, আমিনুল ইসলাম আইমান, সাংবাদিক জসিম উদ্দীন সরকার, সংবাদ কর্মী ওয়াসিম, সংবাদ কর্মী বাবু সাহা প্রমুখ। এসময় বিপুল সংখক সাধারন প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন