মহেশপুরে বিজিবি’র গুলিতে যুবক নিহতের ঘটনায় ক্যাম্প কমান্ডার ক্লোজ

jhinaidohবিশেষ প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ: মহেশপুরের মাটিলা গ্রামে বিজিবি’র গুলিতে নিহত ও আহতের ঘটনায় জলুলী বিজিবি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার শিশির কুমার ঠাকুরকে ক্লোজ করা হয়েছে।

আজ বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বিজিবি’র উচচ পর্যায়ের একটি তদন্ত দল। তদন্ত দলের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ বিজিবি’র গুলিতে নিহত ও আহতের ঘটনায় এলাকাবাসীর সাক্ষাৎকার গ্রহন করেছেন বলে গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন।

স্থানীয় শিক্ষক শামছুর রহমান পলাশ জানান, দুপুর ২টার দিকে ঢাকা ও খুলনা থেকে বিজিবির উচ্চ পর্যায়ের একটি তদন্ত দল মাটিলা গ্রামের ৪জনের স্বাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছেন।

বিজিবি’র ২৬ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে.কর্নেল জাহাঙ্গীর হোসেন বুধবার দুপুরে জলুলী বিজিবি ক্যাম্পে এলাকার জনপ্রতিনিধিদের সাথে এক মতবিনিময় সভা করেছেন। ক্যাম্পের মধ্যে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভা আজ সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলে।

মতবিনিময় সভায় যাদবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিদুল ইসলাম মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সালাউদ্দীন, ইউপি সদস্য মহিউদ্দীন মহি, আওয়ামী লীগ নেতা আয়ুব হোসেন, ওসমান গণি ও শামছুর রহমান পলাশ মাস্টারসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি চেয়ারম্যান জানান, বৈঠকে বিজিবির কমান্ডিং অফিসার লেঃ কর্ণেল জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, এলাকাবাসী আগের মতই নির্ভয়ে চলাচল করবে। তবে যেখানে সীমান্তবর্তী বাজারগুলো রাত ৮টার পরে বন্ধ হত সেখানে ১ ঘন্টা বাড়িয়ে রাত ৯টা পর্যন্ত করা হয়েছে।

যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মহিদুল ইসলাম মাষ্টার জানান, বিজিবি’র দায়ের কৃত মামলা ও আহত এবং নিহতের ঘটনার বিষয় নিয়ে সব ব্যবস্থা করবেন বলেছেন, বিজিবি’র ২৬

উল্লেখ্য, গত শনিবার সন্ধ্যা ৭দিকে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার মাটিলা গ্রামের চা বিক্রেতা রফিকুল ইসলামকে (৩০) সীমান্তের জলুলী ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যদের গুলিতে নিহত হন।

এ ঘটনায় ফিরোজ আহম্মদ (৩৮), বাবুল আক্তার (৩৫) ও আতিকুর রহমান (২৮) আহত হন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন