ঝিনাইদহে মাদ্রাসা শিক্ষক ও ছাত্র দীর্ঘদিন নিখোঁজ: পরিবারে শোকের মাতম

Abu-Huraira-&-Josim-Uddinসময় বাংলা, ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহ সদর উপজেলার অশ্বস্থলী গ্রামের মাদ্রাসা শিক্ষক আবু হুরাইরা মালিথা (৫৫) ও একই উপজেলার কালুহাটী গ্রামের হাফেজ জসিম উদ্দীন (২২) দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। তাদেরকে কোথাও খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীও তাদের আটকের কথা অস্বীকার করছে। ফলে সন্তানহারা এ দুটি পরিবারে এখন চলছে শোকের মাতম।

শিক্ষক আবু হুরাইরার বড় ভাই আব্দুল কাদের জানান, গত ২৩ জানুয়ারী ঝিনাইদহ সদর উপজেলার শৈলমারী বাজার সংলগ্ন কুঠিদুর্গাপুর দাখিল মাদ্রাসা থেকে আবু হুরাইরা মালিথকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে সাদা পোশাকের লোকজন তুলে নিয়ে যায়। কুঠিদুর্গাপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক আবু হুরাইরা সদর উপজেলার অশ্বস্থলী গ্রামের মৃত আশির উদ্দীন মালিথার ছেলে।

মাদ্রাসা সুপার শরিফুল ইসলাম জানান, ঘটনার দিন সকাল ১০টার দিকে আবু হুরাইরা মাদ্রাসার ক্লাস নিচ্ছিলেন। এ সময় মটরসাইকেল যোগে কয়েকজন সাদা পোশাকের মানুষ এসে জানান, তারা বৃহত্তর যশোর থেকে এসেছেন এবং ডিবি পুলিশের লোক। ডিবি পুলিশের কথা শুনে শিক্ষক আবু হুরাইরা তাদের সঙ্গে চলে যান। ডিবি পরিচয়ে শিক্ষক আবু হুরাইরাকে নিয়ে যাওয়ার পর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ও তার পরিবারের লোকজন এক মাসেরও বেশি সময় কোথাও তাকে খুজে পাচ্ছেন না।

ঝিনাইদহ পুলিশ ও ডিবির পক্ষ থেকেও বিষয়টি অস্বীকার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এ হাসেম খান আগেই জানিয়েছেন, আবু হুরাইরা নামে তারা কাউকে আটক করেননি। আবু হুরাইরার পরিবার সদর থানায় জিডি করতে গেলে তা গ্রহন না কের খোঁজ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে ঝিনাইদহ শহরের আলীয়া মাদ্রসার ফাজেল ক্লাসের ছাত্র হাফেজ জসিম উদ্দীন গত ১২ ফেব্রুয়ারী থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। জসিমের বাবা কালুহাটী গ্রামের খলিল মন্ডল জানান, গত ১১ জানুয়ারী জসিম উদ্দীন সিলেট থেকে ঢাকায় ফিরছিলেন। পরদিন ১২ ফেব্রুয়ারী গোয়ালন্দ ঘাট পার হয়ে জসিম তার বাবাকে জানান, ডিবি পুলিশ পরিচয়ে সাদা পোশাকের লোকজন তাদের বাসটি চেক করবে বলে থামিয়েছে। এরপর থেকেই জসিমের মোবাইল বন্ধ রয়েছে। জসিমের সন্ধান না পেয়ে পরিবারটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

একই এলাকার দুই ব্যক্তির নিখোঁজ থাকার বিষয়ে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ জানান, আবু হুরাইরা ও জসিম নামে কাউকে পুলিশ আটক করেনি। তাদের কোন তথ্যও পুলিশের কাছে নেই।

উল্লেখ্য গত ৭ জানুয়ারী কালুহাটী গ্রামের বেলেখাল বাজারে ধর্মান্তরিত সমির নামে এক বয়োবৃদ্ধ হোমিও চিকিৎসক খুন হন। এ ঘটনার পর থেকে গান্না ইউনিয়নের অশ্বস্থলী ও কালুহাটীসহ বিভিন্ন গ্রামে পুলিশ পরিচয় দিয়ে সাদা পোশাকের লোকজন প্রায় মানুষ ধরে নিয়ে আসে। এর আগে চন্ডিপুর গ্রামের মোবারক হোসেন মোহন ও কালুহাটী গ্রামের বছির নামে দুই ব্যক্তিকে সাদা পোশাকের লোক ধরে নিয়ে আসে। বেশ কয়েক দিন নিখোঁজ থাকার পর তাদেরকে পুলিশ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠায়। তবে আবু হুরাইরা ও হাফেজ জসিম উদ্দীন দীর্ঘদিন নিখোঁজ থাকায় এ দুটি পরিবারে উদ্বেগ ও শংকা বাড়ছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন