মানচিত্রে নোয়াখালী সম্পর্কে ভুল তথ্য,নোয়াখালীতে প্রতিবাদ

dir="auto">মানচিত্রে নোয়াখালী সম্পর্কে ভুল তথ্য,নোয়াখালীতে প্রতিবাদ
নোয়াখালী সংবাদদাতাঃ সম্প্রতি এডুকেয়ার নামক প্রকাশনা সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত বাংলাদেশের মানচিত্রে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নোয়াখালী জেলার অায়তন সম্পর্কে ভুল ও বিকৃত তথ্য প্রকাশ করার প্রতিবাদে রবিবার বিকাল পাঁচ ঘটিকায় নোয়াখালীর জেলা শহরের টাউন হল মোড়ে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এন.বি.সি. গ্রুপের সহযোগীতায় ” নোয়াখালী বিভাগ বাস্তবায়ন মঞ্চের অায়োজনে উক্ত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী স্টুডেন্টস ফোরাম অব ঢাকার সিনিয়র সহ-সভাপতি নিজাম উদ্দিন, নোয়াখালী পেইজ’র যুগ্ম অাহ্বায়ক মিজান রহমান, এন.বি.সি গ্রুপের সমন্বয়ক গাজী হোসেন, কোম্পানিগঞ্জ তরুন ছাত্র ফোরামের সভাপতি ওয়ালিদ সাকিব দুর্জয়, লক্ষীপুর বিকেবি মান্দারী ক্লাবের সভাপতি মোঃ সুজন, নোয়াখালী পেইজের সদস্য তাহসান তুহিন সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
এসময় বক্তারা বলেন চলমান নোয়াখালী বিভাগ বাস্তবায়ন অান্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে এক শ্রেণীর মানুষ নিজেদের স্বার্থে নোয়াখালী সম্পর্কে ভুল ও বিকৃত তথ্য প্রচার করছে। এসময় বক্তারা অারো বলেন মানচিত্রে শুধু ঐতিহ্যবাহী নোয়াখালী জেলাকেই বিকৃত করেনি, এতে বিকৃত হয়েছে স্বাধীন সার্বভৌম দেশের মানচিত্রের মর্যাদা। বক্তারা উক্ত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং এ বিষয়ে যথাযথ ব্যাবস্থা নিতে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেন।
উক্ত মানচিত্রে নোয়াখালীর বর্তমান অায়তন ৪২০২ বর্গকিলোমিটার কে কমিয়ে ৩৬৮৫.৮৭ এবং কুমিল্লার অায়তন ৩০৮৭.৩৩ বর্গকি.মি. কে বাড়িয়ে ৩১৪৬.৩০ বর্গকি.মি. প্রকাশ করা হয়েছে। উক্ত মানচিত্রে নোয়াখালীর উল্লেখযোগ্য দ্বীপসমূহকেও অন্তর্ভূক্তি করা হয়নি। এছাড়াও মানচিত্রটিতে বৃহত্তর নোয়াখালী ও বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলকে ‘ময়নামতি’ নামক কাল্পনিক বিভাগের অন্তর্ভূক্তি করা হয়েছে। অথচ দেশের প্রশাসনিকভাবে ‘ময়নামতি’ নামক এখনও কোন বিভাগ প্রতিষ্ঠা হয়নি।
সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন